তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৭ মে ২০১৫

তথ্যবিবরণী 17/5/2015

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৪১৭

দৈনিক সংবাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে স্পিকার
অসাম্প্রদায়িক চেতনা অব্যাহত রাখার আশাবাদ

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ, (১৭ মে) ঃ

সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, অসাম্প্রদায়িক চিন্তা-চেতনা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে অনন্যস্থানে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।

স্পিকার আজ ঢাকায় দৈনিক সংবাদ পত্রিকার কার্যালয়ে পত্রিকাটির ৬৫ বছর পদার্পণ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে এ আহ্বান জানান।

স্পিকার বলেন, অনেক ইতিহাসের সাক্ষ্য এই পত্রিকা। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে দীর্ঘ ৬৫ বছরে দৈনিক সংবাদ আজকের এ অবস্থায় এসেছে। অসাম্প্রদায়িক চিন্তা-চেতনা, মুক্তিযুদ্ধ, বাঙালি জাতীয়তাবাদ ও আদর্শবাদী সাংবাদিকতার প্রত্যয় নিয়ে দৈনিক সংবাদ যাত্রা শুরু করে। ভবিষ্যতেও এ যাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

দৈনিক সংবাদের সম্পাদক আলতামাশ কবির, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খন্দকার মুনীরুজ্জামান, ব্যারিস্টার নিহাত কবীর এবং লায়লা রহমান কবীর এসময় উপস্থিত ছিলেন।

#

শিবলী/সাইফুল্লাহ/আলম/জসীম/রেজাউল/২০১৫/২০৩৫ ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১৪১৬

ওয়ার্ল্ড এডুকেশন ফোরাম
দক্ষিণ কোরিয়ার উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ
ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :
    আগামী ১৯ থেকে ২২ মে দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচিয়নে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বিশ্বের শিক্ষাখাতের সবচেয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টস ওয়ার্ল্ড এডুকেশন ফোরাম ২০১৫।
    ফোরামে যোগ দিতে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের নেতৃত্বে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ৭ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধিদল আজ কোরিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন।
    ওয়ার্ল্ড এডুকেশন ফোরামের আলোচ্যসূচিতে রয়েছে সবার জন্য শিক্ষা কর্মসূচি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ডাকার ফ্রেমওয়ার্ক ফর প্লান ও শিক্ষা সংক্রান্ত সহ¯্রাব্দ লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে অর্জন ও ঘাটতিগুলো যাচাই করে ২০১৫ পরবর্তী শিক্ষা কর্মসূচি সম্পর্কে মতৈক্যে পৌঁছানো এবং ২০৩০ পর্যন্ত ফ্রেমওয়ার্ক ফর অ্যাকশন প্লান চূড়ান্ত করা। এসব লক্ষ্যমাত্রা ও অ্যাকশন প্লান আগামী সেপ্টেম্বর ২০১৫-তে জাতিসংঘের বিশেষ টেকসই উন্নয়ন সামিটে গ্রহণ করা হবে। এই ফোরামে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষামন্ত্রী, শিক্ষাবিদ, শিক্ষক, গবেষক, পরিকল্পনাবিদসহ প্রায় ১ হাজার ৫শ’ প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করবেন।
    দক্ষিণ কোরিয়া সরকার, ইউএনডিপি, ইউএনএফপিএ, ইউনিসেফ, বিশ্বব্যাংক যৌথভাবে এ ফোরাম আয়োজন করছে।
    বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের অন্য সদস্যরা হলেন- শিক্ষাসচিব মোঃ নজরুল ইসলাম খান, গণস্বাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, ইমেরিটাস অধ্যাপক ও ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র উপদেষ্টা মনজুর আহমদ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মো: নজরুল ইসলাম খান, বাংলাদেশ ইউনেস্কো কমিশনের সচিব মোঃ মনজুর হোসেন এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ড. মোঃ আবু হেনা মোস্তফা কামাল।
    বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল আগামী ২৪ মে দেশে ফিরবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে শিক্ষামন্ত্রী চীনের কিংদাওয়ে অনুষ্ঠিতব্য ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন আইসিটি এন্ড পোস্ট-২০১৫ এডুকেশন শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দিয়ে আগামী ২৭ মে ঢাকা ফিরবেন।
#
সুবোধ/সাইফুল্লাহ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/২১১০ঘণ্টা  
 
তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর : ১৪১৫

মতবিনিময় সভায় এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী
সমবায়ভিত্তিক উৎপাদন ব্যবস্থা চালু করেছে সরকার

সিলেট, ৩ জ্যৈষ্ঠ, (১৭ মে) ঃ

এলজিআরডি ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মোঃ মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেছেন, সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন ছাড়া জাতীয় অর্থনীতি বিকশিত হতে পারে না।

প্রতিমন্ত্রী আজ সিলেট সদর উপজেলার পলিয়া নামক গ্রামে সার্বিক গ্রাম উন্নয়নভুক্ত (সিভিডিপি) সদস্যদের সাথে মতবিনিময়কালে একথা বলেন।

সিভিডিপি এর প্রকল্প পরিচালক আল নূরী ফয়জুর রেজা এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পল্লি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মোঃ আব্দুল জলিল মিয়া।
 
প্রতিমন্ত্রী বলেন, শহর ও গ্রামের মধ্যে অর্থনৈতিক সেতুবন্ধ রচনা করতে হলে গ্রামের উৎপাদিত কৃষিজাত পণ্য সহজে ও স্বল্প ব্যয়ে শহরে পৌঁছাতে হবে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার সমবায়ভিত্তিক উৎপাদন ব্যবস্থা চালু করেছে। এতে করে কৃষকগণ তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন এবং মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্যহ্রাস পেয়েছে। তিনি এ কর্মসূচি সফলভাবে এগিয়ে নিতে সমবায় সমিতির সদস্যদের আরো ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।

এর আগে প্রতিমন্ত্রী সিভিডিপি সিলেট সদর উপজেলার পলিয়া সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন লিঃ এর কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

#

আহসান/সাইফুল্লাহ/নবী/রেজাউল/২০১৫/২০৫৬  ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৪১৪

কর্মশালায় ড. মসিউর রহমান
সরকারের পদক্ষেপের ফলে রাজস্ব ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে

খুলনা, ৩ জ্যৈষ্ঠ, (১৭ মে) ঃ

    প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান বলেন, জাতীয় অর্থনীতিতে রাজস্ব আহরণের অন্যতম উৎস হলো কর। রাজস্ব আদায়বৃদ্ধি এবং করদাতাদের রাজস্বপ্রদানে উৎসাহ দিতে সরকার নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ  করেছে। দেশের উন্নয়নে করদাতাদের কর দেয়া অপরিহার্য। এটি সরকারের ব্যয়নির্বাহসহ সম্পদের সুষম বন্টন ও সামাজিক বৈষম্যহ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।


    প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা আজ খুলনার খালিশপুর ফেয়ারওয়ে মাল্টিপারপাস হলে খুলনা কাস্টমস এক্্রাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট আয়োজিত মূল্যসংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন-২০১২ এর করদাতা উদ্ধুদ্ধকরণ বিষয়ক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।

    তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপের ফলে রাজস্বনীতি ও রাজস্ব ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। মূসকব্যবস্থাকে আরো ব্যবসাবান্ধব, সহজে পরিপালনযোগ্য, গতিশীল এবং সময়োপযোগী করার লক্ষ্যে মূল্যসংযোজন কর আইন-২০১২ প্রণয়ন করা হয়েছে। নতুন এ আইনে ইলেকট্টনিক পদ্ধতিতে মূসক দাখিল করা হচ্ছে। এরফলে নানাবিষয়ে সীমাবদ্ধতা দূর হয়েছে। সহজ, আধুনিক ও প্রযুক্তিনির্ভর রাজস্ব ব্যবস্থানায় করদাতাগণ কর প্রদানে আগের চেয়ে আরো বেশি আগ্রহী হবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

    খুলনা কাস্টমস এক্্রাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট এর কমিশনার কে এম অহিদুল আলমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন মংলা কাস্টমস হাউসের কমিশনার ড. মোহাঃ আল আমিন প্রামানিক এবং খুলনা চেম্বারের প্রেসিডেন্ট কাজী আমিনুল হক।

#

সুলতান/সাইফুল্লাহ/আলম/জসীম/রেজাউল/২০১৫/২০০৪ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর : ১৪১৩

স্পিকারের সাথে জার্মান রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :
বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মানির রাষ্ট্রদূত ড. থমাস প্রিন্জ (উৎ. ঞযড়সধং চৎরহু) আজ বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ও সিপিএ চেয়ারপার্সন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর  সাথে তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন।
সাক্ষাৎকালে তাঁরা দ্বিপাক্ষিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করেন। এসময় তারা দু’দেশের বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও উন্নয়নের বিভিন্ন দিক নিয়েও আলোচনা করেন। এছাড়া তাঁরা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরো জোরদার করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
সাক্ষাৎকালে স্পিকার বলেন, বাংলাদেশে প্রজনন অধিকার ও প্রজনন স্বাস্থ্যরক্ষা, সামাজিক ও স্বাস্থ্যসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে দেশে মাতৃ ও শিশু মৃত্যুহার হ্রাস এবং বাল্যবিবাহ রোধে অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। তিনি আরো বলেন, তৈরিপোশাক শিল্প, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, নারীশিক্ষা এসকল ক্ষেত্রেও উল্লেখযোগ্য সফলতা রয়েছে।
এসময় জার্মানির রাষ্ট্রদূত বলেন, তৈরিপোশাকখাত বাংলাদেশের অর্থনীতির একটি গুরুত্বপূর্ণ খাত। বাংলাদেশ থেকে জার্মানিতে বিপুল পরিমাণ তৈরিপোশাক রপ্তানি হয়। এই রপ্তানির পরিমাণ ভবিষ্যতে আরো বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
স্পিকার বলেন, বাংলাদেশ-জার্মানি ও ইইউভুক্ত দেশসমূহের মধ্যে সংসদীয় ফ্রেন্ডশিপ গ্রুপ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জার্মানিসহ ইইউভুক্ত দেশসমূহের মধ্যে সম্পর্ক আরো দৃঢ় হবে।
এসময় জার্মানির রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করে ভবিষ্যতে সকল ক্ষেত্রে সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।
জার্মানির রাষ্ট্রদূত শিক্ষাক্ষেত্রে বাংলাদেশকে অব্যাহত সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে জার্মান কালচারাল সেন্টার রয়েছে, যার মাধ্যমে দু’দেশের শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে পারস্পরিক সম্পর্ক সম্প্রসারিত হচ্ছে । ভবিষ্যতে এক্ষেত্র আরো সম্প্রসারিত হবে।
স্পিকার এসময় জার্মানির রাষ্ট্রদূতকে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের রীতি-পদ্ধতি এবং সংসদ অধিবেশন সম্পর্কে অবহিত করেন।
এরপর ইউএনএফপি’র কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ আর্জেন্টিনা পি. মেটাভেল (অৎমবহঃরহধ চ. গধঃধাবষ), ইউনিসেফ’র ডেপুটি রিপ্রেজেন্টেটিভ লুইজ ভোনো (খঙটওঝঊ গঠঙঘঙ) স্পিকারের সাথে সাক্ষাৎ করেন। এছাড়া ‘এনডিআই’র রেসিডেন্ট ডিরেক্টর ঋষি দত্ত স্পিকারের সাথে সাক্ষাৎ করেন।
#
মঞ্জুর/সাইফুল্লাহ/আলম/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/২০০৫ঘণ্টা   
তথ্যবিবরণী                                                                                                         নম্বর : ১৪১২


গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের কর্মশালায় তথ্যমন্ত্রী
নারী উন্নয়নের বাধাসমূহ অতিক্রম করতে তথ্য অফিসারদের কাজ করতে হবে

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :
    তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার ও জঙ্গিবাদকে নারী ও শিশুউন্নয়ন এবং নারী-পুরুষ সমতায়নের প্রধান অন্তরায়। দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের লক্ষ্যে এ সকল প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করতে জেলা তথ্য অফিসারদের কাজ করতে হবে।
    মন্ত্রী আজ ঢাকায় বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে গণযোগাযোগ অধিদপ্তর আয়োজিত ‘শিশু ও নারী উন্নয়নে যোগাযোগ কার্যক্রমের ৪র্থপর্যায়ের প্রকল্পের ২০১৫-১৬ অর্থবছরের কর্মপরিকল্পনা এবং পর্যালোচনা’ শীর্ষক দু’দিনব্যাপী কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ আহ্বান জানান।
    প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ বিশেষ অতিথি হিসেবে তাঁদের বক্তৃতায় বাংলাদেশকে  সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে নারী ও শিশুরউন্নয়নের তাৎপর্য তুলে ধরেন।
    গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কামরুন নাহারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে  স্বাগত বক্তব্য রাখেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও প্রকল্পটির পরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদ।
    ৬৪ জেলা এবং ৪ উপজেলা তথ্য অফিসের ৬৮ তথ্য অফিসার কর্মশালায় অংশগ্রহণ করছেন।
    তথ্যমন্ত্রী বলেন, ধর্মীয় বিধানের অপব্যাখ্যা, আইনের সঠিক প্রয়োগ না হওয়া, বাল্যবিবাহ, সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদ দেশের নারী ও শিশুদের অগ্রযাত্রা ব্যাহত করছে। এসকল বিষয়ে সঠিক তথ্য তুলে ধরে জনগণকে সচেতন করতে তথ্য অফিসারদের নিবেদিতপ্রাণে কাজ করতে হবে।
শেখ হাসিনার প্রত্যাবর্তন দেশের সমৃদ্ধির মূলমন্ত্র-তথ্যমন্ত্রী

    তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যাবর্তন ছিল দেশের সমৃদ্ধির মূলমন্ত্র।
    আজ বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে গণযোগাযোগ অধিদপ্তর আয়োজিত ‘শিশু ও নারী উন্নয়নে যোগাযোগ কার্যক্রম’ কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তৃতার শুরুতে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আজ ১৭মে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রত্যাবর্তন দিবস। ১৯৮১ সালের এইদিনে তিনি স্বজনশূন্য-রাজনীতিশূন্য বাংলাদেশে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রত্যাবর্তন করেন।
    হাসানুল হক ইনু বলেন, সামরিক জান্তার ছোবলে বিধ্বস্ত-রক্তাক্ত বাংলাদেশে ফিরে বঙ্গবন্ধুকন্যা আওয়ামীলীগ, রাজনীতি ও জননীতি পুনর্গঠনের কাজে আত্মনিয়োগ করেন।
    মন্ত্রী এসময় প্রধানমন্ত্রীর সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘজীবন কামনা করে দেশমাতৃকার জন্য তাঁর অসামান্য অর্জনের জন্য অভিনন্দন জানান এবং  অসমাপ্ত কল্যাণমুখী সকল পরিকল্পনার সফলতার জন্য প্রার্থনা করেন।
#
আকরাম/সাইফুল্লাহ/আলম/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/১৯৫৫ঘণ্টা  
 
তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৪১১

ছাত্রকল্যাণ ট্রাস্টের অনুষ্ঠানে ডেপুটি স্পিকার
প্রগতিশীল সমাজ গঠনে সুশিক্ষার ওপর গুরুত্বারোপ
 
ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :
    ডেপুটি স্পিকার মোঃ ফজলে রাব্বী মিয়া বলেছেন, সুশিক্ষিত লোকই পারে তাঁর জ্ঞানের আলো সমাজের দিকে দিকে ছড়িয়ে দিয়ে একটি অসম্প্রদায়িক, কুসংস্কারমুক্ত, জঙ্গিবাদমুক্ত, উদার ও প্রগতিশীল সমাজ গঠনে সহায়তা করতে। পুঁথিগত জ্ঞানার্জনে একটি স্বাচ্ছন্দময় জীবনযাপন করা যেতে পারে কিন্তু নৈতিক ও মানবিক গুণের অধিকারী হতে হলে তাঁকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে।
    ডেপুটি স্পিকার আজ রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ছাত্রকল্যাণ ট্রাস্টের একযুগপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত “সুশিক্ষাই দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গঠনের একমাত্র সহায়ক” শীর্ষক জাতীয় সেমিনার ও বিশেষ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে একথা বলেন।
    অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ছাত্রকল্যাণ ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক লে.  কর্নেল (অব.) আবু ওসমান চৌধুরী এর সভাপতিত্বে শিক্ষাবিদ ড. আনিসুজ্জামান, ড. শফিক আহমেদ সিদ্দিক, ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী, অধ্যাপক আবু সাইদ, ড. প্রাণ গোপাল দত্ত এবং বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আগত ভাইস-চ্যান্সেলরবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
    ডেপুটি স্পিকার বলেন, শিক্ষাসচেতনতার মাধ্যমে দেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার করে গড়ে তোলা সম্ভব। এক্ষেত্রে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকবৃন্দ ও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। তাছাড়া সমাজের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার লোকজনও দুর্নীতি প্রতিরোধে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে উদ্ভুদ্ধ করতে পারে। তিনি শিক্ষাক্ষেত্রে জাতিগত মানবিক মূল্যবোধের অবক্ষয়রোধ করতে বর্তমান প্রজন্মকে একটি রেঁনেসার সূচনা ঘটানোর আহ্বান জানান।
    তিনি আরো বলেন, শিক্ষাবিস্তারে বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছেন। কিন্তু শুধু সরকারের দিকে চেয়ে থাকলে সব সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়। সমাজের প্রথিতযশা ও বিত্তবান ব্যক্তিদের শিক্ষার গুণগতমান রক্ষায় সরকারকে সহযোগিতা করতে হবে; তবেই একটি পরিচ্ছন্ন, সুখী ও সমৃদ্ধি জাতি গড়ে উঠবে।
    অনুষ্ঠানে শিক্ষাক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ২৯ জন দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ ও শিক্ষা উদ্যেক্তাদের সম্মাননা দেয়া হয়। তাঁদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন ডেপুটি স্পিকার মোঃ ফজলে রাব্বী মিয়া।
#

স্বপন/সাইফুল্লাহ/আলম/রফিকুল/রেজাউল/২০১৫/১৮৫০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৪১০

সিপিএ’র চার দিনব্যাপী বার্ষিক সেমিনার আগামীকাল ঢাকায় শুরু হচ্ছে

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :
‘সংসদীয় গণতন্ত্র শক্তিশালীকরণ’- এই মূলভাবকে সামনে রেখে ১৮-২১ মে ঢাকায় কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশন (সিপিএ)-এর ২৬তম বার্ষিক পার্লামেন্টারি সেমিনার অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কমনওয়েলথভুক্ত ৯টি অঞ্চলের বিভিন্ন দেশের ২৮টি শাখার প্রায় ৫০ পার্লামেন্টারিয়ান ও প্রতিনিধি এ সেমিনারে অংশগ্রহণ করবেন। বঙ্গবন্ধু আর্ন্তজাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে আগামীকাল চারদিনব্যাপী সেমিনারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশনের নির্বাহী কমিটির চেয়ারপারসন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার
ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ।

সেমিনারের ১৩টি সেশনের বিষয়বস্তুর ওপর কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশনের বর্তমান চেয়ারপার্সন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীসহ আমন্ত্রিত দেশি-বিদেশি পার্লামেন্টারিয়ানগণ মূলবক্তব্য উপস্থাপন করবেন। বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের পাঁচজন অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান পাঁচটি সেশনে মূলবক্তা হিসেবে অংশগ্রহণ করবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। যেসব বিষয়ে অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে: The Commonwealth and the Role of the CPA, The Parliamentary and Political Scene in Bangladesh, The member of Parliament and the Party, Parliament, Gender and Human Rights, Parliament, the Member and the Media ইত্যাদি।

    সংসদীয় পদ্ধতি ও চর্চার ওপর বার্ষিক ওয়েস্টমিন্স্টার সেমিনারগুলোর মাধ্যমে কমনওয়েলথভুক্ত পার্লামেন্টের পার্লামেন্টারিয়ানগণ সংসদীয় গণতন্ত্রের উৎপত্তি ও মৌলিক উপাদানসম্পর্কে গভীর ও বিস্তৃত ধারণা অর্জন করে থাকেন। ১৯৮৭ সালের মার্চে জিব্রাল্টারে অনুষ্ঠিত সিপিএ নির্বাহী কমিটির সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতিবছর কমনওয়েল্থের বিভিন্ন অঞ্চলে এই বার্ষিক কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। প্রথম সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৯ সালে, জাম্বিয়ায়। অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে ২০১৬ সালে ২৭তম সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।

    ১৯১১ সালে সিপিএ-র যাত্রা শুরু হয় এবং বাংলাদেশ ১৯৭৩ সালে এর সদস্যপদ লাভ করে। ২০০৩ সালে ঢাকায় সিপিএ-র ৪৯তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ২০১৪ সালের অক্টোবরে কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশনের চেয়ারপার্সন নির্বাচিত হওয়ার প্রেক্ষাপটে এশিয়া অঞ্চলের স্বাগতিক দেশ হিসেবে ২৬তম এ বার্ষিক সেমিনারের আয়োজন অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ এবং অধিকতর গুরুত্ব বহন করছে। কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোতে গণতন্ত্র, সুশাসন, মানবাধিকার ও অর্থনৈতিক স্বয়ংসম্পূর্ণতা প্রতিষ্ঠায় সিপিএ-র ভূমিকা অপরিসীম।

#

লাবণ্য/সাইফুল্লাহ/আলম/জসীম/রেজাউল/২০১৫/১৭২৮ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৪০৯

জাতীয় সংলাপ
বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ৫ বৎসর মেয়াদি জাতীয় কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হচ্ছে

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :
    বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ৫ বৎসর মেয়াদি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে যাচ্ছে। ২০১৫ হতে ২০২১ সালের মধ্যে বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে এ কর্মপরিকল্পনায় স্বল্পমেয়াদি, মধ্যমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে।
    আজ রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে জাতীয় কর্মপরিকল্পনার ওপর একটি জাতীয়পর্যায়ের ডায়ালগ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম বলেন, দারিদ্র্যতা ও অসচেতনতা বাল্যবিবাহের জন্য দায়ী। তিনি অভিভাবক ও সমাজের সকল জনগণকে বাল্যবিবাহের কুফলসম্পর্কে সচেতন করতে মিডিয়া ও সিভিল সোসাইটির সমন্বিত উদ্যোগ কামনা করেন। তিনি আরো বলেন, সকলের সাথে আলোচনা করে এই কর্মপরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হবে।
    মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব তাহমিনা বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউনিসেফ বাংলাদেশের ডেপুটি রিপ্রেজেন্টেটিভ লুইস বনু (খড়ঁরংব গাড়হড়) এবং ইউএনএফপিএ বাংলাদেশের ডেপুটি কান্ট্রি রিপ্রেজিন্টেটিভ উরি কাতু (ওড়ৎর কধঃড়)। মিজ লুইস বনু বলেন, বাল্যবিবাহের মাধ্যমে শুধু নারীর মানবাধিকারই লঙ্ঘিত হয়না বরং তা জাতীয় উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করে।
    আলোচনা শুরুতে নারীনির্যাতন প্রতিরোধে মাল্টিসেক্টরাল এপ্রোচ প্রকল্পের পরিচালক ড. আবুল হোসেন স্বাগত বক্তব্য রাখেন এবং কর্মপরিকল্পনায় মেট্রিক্স উপস্থাপন করেন।
    মেট্রিক্স (২০১৫-২০২১) সময়ের মধ্যে শতভাগ জন্ম ও বিবাহ রেজিস্ট্রেশন নিশ্চিত করা, বাল্যবিবাহের সাথে সম্পর্কিত আইনের সংশোধন, জেলা পর্যায়ে বাল্যবিবাহের শাস্তি নিশ্চিত করার জন্যে লিগ্যাল এইড ক্লিনিক স্থাপন, ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টি ও স্কলারশিপ চালুর বিষয়গুলি সন্নিবেশিত করা হয়েছে।

#

খায়ের/সাইফুল্লাহ/আলম/রফিকুল/রেজাউল/২০১৫/১৭৪৬ ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর : ১৪০৮

বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত  

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :  

    দশম জাতীয় সংসদের বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি’র ১০ম বৈঠক আজ কমিটি সভাপতি মুহম্মদ ফারুক খান এর সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির সদস্য বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ, মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী, কামরুল আশরাফ খান, মো. আফতাব উদ্দীন সরকার এবং সাবিহা নাহার বেগম বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।
    বৈঠকে বিমানবন্দরসমূহের লাগেজ হ্যান্ডলিং সমস্যা সমাধানে গৃহীত পদক্ষেপ, বাংলাদেশ বিমান পরিচালিত রোমের ফ্লাইট লাভজনক কিনা এবং তা বন্ধ করে দেয়ার বিষয়ে আলোচনা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর প্রকল্পের সর্বশেষ পরিস্থিতি এবং বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চলতি বছরের উন্নয়ন কার্যক্রম এর অগ্রগতি এবং পরবর্তী বছরের উন্নয়ন পরিকল্পনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।
বৈঠকে জানানো হয় যে, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লাগেজ হ্যান্ডলিং উন্নত করার নিমিত্তে বিমানের স্টেশন ট্রাফিকের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে একটি ব্যাগেজ হ্যান্ডলিং ইউনিট গঠন করা হয়েছে এবং ব্যাগেজ হ্যান্ডলিংয়ের জন্য প্রয়োজনীয় লোকবলও বৃদ্ধি করা হয়েছে।
বিমানকে লাভজনক ও যাত্রীসেবার মান আরও বৃদ্ধি করা বিষয়ক কমিটি গত ১৬ মে ২০১৫ তারিখে বাংলাদেশ বিমানের লন্ডন-ঢাকা ফ্লাইটে যাত্রীদের চাহিদা থাকা সত্ত্বেও ৮০ টি সিট খালি থাকার বিষয়ে তদন্ত করে পরবর্তী বৈঠকে রিপোর্ট প্রদানের বিষয়ে সুপারিশ করে। মধ্যপ্রাচ্যের বিমানসংস্থা সমূহের সাথে বাংলাদেশ বিমানের ইন্টারলাইন/স্পেশাল প্রোরেট এগ্রিমেন্ট-এর মাধ্যমে রোমের যাত্রী পরিবহণের বিষয়ে মন্ত্রণালয়কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করা হয়।
বিদেশি বিমানগুলোতে কমপক্ষে দুইজন বাংলাদেশি কেবিন ক্রু নিয়োগ এবং বেসরকারি বিমানগুলো বাংলাদেশে কিভাবে চলাচল করছে সে বিষয়ে কমিটির পরবর্তী বৈঠকে একটি রিপোর্ট প্রদানের সুপারিশ করা হয়।
সিভিল এভিয়েশন বাস্তবায়িত প্রকল্পগুলোর কাজ নির্ধারিত সময়ে সম্পন্ন করা এবং প্রকল্পের মেয়াদ কোনভাবেই বর্ধিত না করার বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করা হয়।
    বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যানসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
#
এমাদুল/মোহাম্মদ আলী/অনসূয়া/শুকলা/আসমা/২০১৫/১৫৪০ ঘণ্টা  

 

 
তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর : ১৪০৭

সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

    দশম জাতীয় সংসদের সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি’র ১৩ তম বৈঠক আজ কমিটি সভাপতি কাজী কেরামত আলী এর সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির সদস্য আলহাজ এডভোকেট রহমত আলী, মোঃ শহীদুজ্জামান সরকার, মোঃ আব্দুল মজিদ খান এবং মীর মোস্তাক আহমেদ রবি বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।  
বৈঠকে ৯ম জাতীয় সংসদের প্রথম থেকে শেষ অধিবেশন পর্যন্ত এবং ১০ম সংসদে সম্প্রতি সমাপ্ত অধিবেশন পর্যন্ত সময়ে সংসদের ফ্লোরে প্রধানমন্ত্রী ও বিদ্যৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত প্রতিশ্রুতির ওপর আলোচনা করা হয় এবং জানানো হয় যে, উক্ত সময়ে মোট ২৭টি প্রতিশ্রুতির মধ্যে ১৬টি বাস্তবায়িত হয়েছে এবং ৮টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে।
বৈঠকে আরো জানানো হয় যে, মহাজোট সরকারের ক্ষমতাগ্রহণের পর থেকে মোট ৫ হাজার ৬ শত ৩৭ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৭০ টি নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু হয়েছে এবং বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ১১ হাজার ২ শত ৬৫ মেগাওয়াট এ উন্নীত হয়েছে।
গ্রামাঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষেত্রে যে সমস্ত ঠিকাদার সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে প্রতারিত করে তাদের ব্যাপারে আরো সজাগ থাকার জন্য বৈঠকে পরামর্শ দেওয়া হয়।
বৈঠকে বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি) কর্তৃক বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা করা হয় এবং প্রকল্প গ্রহণের আগেই জমি অধিগ্রহণসহ সকল বিষয় নিশ্চিত করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই প্রকল্প সমাপ্ত করার সুপারিশ করা হয়।
বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব, আইএমইডি এর সচিবসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
#

মিজানুর/মোহাম্মদ আলী/অনসূয়া/শুকলা/আসমা/২০১৫/১৫৩০ ঘণ্টা  

 

 

Handout                                                                                                                     Number : 1406

Bangladesh-Malaysia Joint Commission Meeting Held

Kota Kinabalu, May 17:

            The Fourth Meeting of the Bangladesh – Malaysia Joint Commission was held in Kota Kinabalu, Sabah, Malaysia today. The Bangladesh Delegation was led by the Foreign Minister Abul Hassan Mahmood Ali, MP while the Malaysian Delegation was led by the Malaysian Foreign Minister Dato’ Sri Anifah Aman. 

            During the meeting, bilateral issues between Malaysia and Bangladesh were discussed in details. The two leaders were pleased with the current state of bilateral relations. Both sides expressed hope and confidence that regular exchange of visits, as well as regular contacts and interaction between leaders and officials would continue to be the driving force behind the development of productive and mutually beneficial relations of both the countries.

            Both the Foreign Ministers agreed to further explore the potentials for bilateral trade and investment for mutual benefit of the two countries. They also discussed in details on the employment of Bangladesh workers in Malaysia, possible cooperation in the fields of infrastructure development, tourism, culture, education, agriculture and science and technology.

            Bangladesh requested Malaysia to take further steps to recruit more workers from Bangladesh and to consider opening other potential sectors for Bangladesh workers.

            Both the leaders also acknowledged the importance of continued cooperation with other countries in the region to find a coordinated response to prevent the growing menace of irregular movements of people involving human smuggling and trafficking in persons and its eventual solutions.

            The Foreign Minister also called on the Chief Minister of the State of Sabahon and discussed various issues of bilateral interest. He also attended a Malaysian traditional Harvest Festival.

            The meeting was concluded with signing of a 31-point Joint Agreed Minutes by the two Foreign Ministers.  The fifth Joint Commission Meeting will be held in Dhaka in 2017 at a mutually convenient date.

#

 

Khaleda/Mohammad Ali/Anasuya/Asma/2015/1530 hours

 
তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর : ১৪০৫

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সম্মেলনে যোগ দিতে জেনেভার উদ্দেশে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ   


ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠেয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ৬৮তম সম্মেলনে যোগ দিতে গতকাল জেনেভার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন। আগামী ১৮ মে এই সম্মেলন শুরু হবে।
২০ মে স্বাস্থ্য মন্ত্রী এই সম্মেলনে বক্তৃতা দেবেন। সম্মেলন

Todays handout (7).doc Todays handout (7).doc

Share with :

Facebook Facebook