তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৪ জুলাই ২০২১

তথ্যবিবরণী ১৪ জুলাই ২০২১

তথ্যবিবরণী                                                                                                                নম্বর : ৩২৭০

ঢাকা বিভাগে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

          করোনা ভাইরাস মহামারির প্রেক্ষিতে মানবিক সহায়তা হিসেবে সরকারের পক্ষ হতে দেশব্যাপী ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

          গতকাল ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন জেলায় এ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে।

          ঢাকা জেলায় ত্রাণ হিসেবে ২ লাখ টাকা নগদ আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়। উত্তর সিটি করপোরেশনে ১ লাখ মেট্রিক টন চাল এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ১ লাখ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়। ৩৩৩ কলের মাধ্যমে ৩০০৩ টি পরিবার এবং ১৪২৬৪ জন ব্যক্তিকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

          নরসিংদী জেলায় ত্রাণ হিসেবে ৪০ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন চাল এবং ভিজিএফ কার্ডের মাধ্যমে ৩ লাখ ৬৬ হাজার ১০০  মেট্রিক টন চাল এবং ৩৩৩ কলের মাধ্যমে ৯২৩টি পরিবার ও ৪৬১৫ জন লোককে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

          গোপালগঞ্জ জেলায় ভিজিএফ কার্ডের মাধ্যমে ৭৫ হাজার মেট্রিক টন চাল এবং ৩৩৩ কলের মাধ্যমে ১৫৫৫ টি পরিবার ও ৬১১৭ জন লোককে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

          শরীয়তপুর জেলায় ১০২০টি পরিবারের মাঝে ১০ টন ২০০ কেজি চাল বিতরণ করা হয়েছে।

          মুন্সিগঞ্জ জেলায় ভিজিএফ কার্ডের মাধ্যমে ২২ হাজার ৬৮৫ মেট্রিক টন চাল এবং ৩৩৩ কলের মাধ্যমে ৩৭১৮টি পরিবার ও ১০৮ জন লোককে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

          ফরিদপুর জেলায় ত্রাণ  হিসেবে ১১ হাজার মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়।

          কিশোরগঞ্জ জেলায় ভিজিএফ কার্ডের মাধ্যমে ৭ লাখ ৭৩ হাজার ৮৪০ মেট্রিক টন চাল এবং ৩৩৩ কলের মাধ্যমে ৪৮২ টি পরিবার ও ২৪১০ জন লোককে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।

          সংশ্লিষ্ট  জেলার জেলা তথ্য অফিসসমূহ ঢাকা বিভাগীয়  তথ্য অফিসের মাধ্যমে  এসব তথ্য জানিয়েছে।

#

আনোয়ার/সাহেলা/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/২১৫০ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                                                                                                                                            নম্বর : ৩২৬৯

 

বরিশাল বিভাগে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত কর্মহীন পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই): 

 

          বরিশাল বিভাগের কোভিড-১৯ দ্বিতীয় ঢেউ পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্ত ও কর্মহীন হয়ে পড়া বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর মাঝে সরকারের ত্রাণসামগ্রী বিতরণ মানবিক সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। আজ জেলা প্রশাসন বরিশালের আয়োজনে উন্নয়ন সংস্থা আভাস এর সহযোগিতায় বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন এর পক্ষ থেকে অফিসার্স ক্লাব বরিশালের প্রাঙ্গণে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত কর্মহীন ৩৪৪ জন দরিদ্র অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়। ত্রাণসামগ্রী হিসেবে প্রতি পরিবারের জন্য ১২ কেজি চাল, ৬ কেজি আটা, ৩ কেজি ডাল, ১ কেজি চিনি, ১ কেজি লবণ, ২ লিটার সয়াবিন তৈল, ১ কেজি চিড়া, সাবান ৬ পিছ, সুজি ৫০০ গ্রাম বিতরণ করেন।

 

          অপরদিকে, বরগুনা জেলায় দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক কোভিড-১৯ দ্বিতীয় ঢেউ পরিস্থিতি মোকাবিলায় ৬৪ জেলায় (পৌরসভাসহ) ও ১২ সিটি করপোরেশনে ২০২১-২২ অর্থবছরে পরিচালিত মানবিক সহায়তা কার্যক্রমের আওতায় ত্রাণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বরগুনা জেলায় ত্রাণকার্যের (চাল) আওতায় ২০০টি পরিবারের ৮০০ জনের মধ্যে ২ মেট্টিক টন চাল বিতরণ করা হয়।

#

 

জাহাঙ্গীর/সাহেলা/সঞ্জীব/আব্বাস/২০২১/২১৪০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                            নম্বর : ৩২৬৮

আজ মধ্যরাত হতে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত শর্তসাপেক্ষে গণপরিবহন চলাচলের সিদ্ধান্ত

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

            আজ মধ্যরাত হতে ২৩ জুলাই ২০২১ সকাল ৬টা পর্যন্ত শর্তসাপেক্ষে গণপরিবহন চলাচলের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ হতে একটি পত্র জারি করা হয়েছে।

            শর্তানুযায়ী একজন যাত্রীকে বাস ও মিনিবাসের পাশাপাশি দুইটি আসনের একটি আসনে বসিয়ে অপর আসনটি অবশ্যই ফাঁকা রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি অনুসারে শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। আড়াআড়িভাবে আসন বিন্যাস করতে হবে। সংশ্লিষ্ট মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটে উল্লিখিত মোট আসন সংখ্যার অর্ধেকের বেশি যাত্রী বহন করা যাবে না। কোনোভাবেই সমন্বয়কৃত ভাড়ার (বিদ্যমান ভাড়ার ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়া) অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা যাবে না বলে পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

            পত্রে গণপরিবহনে যাত্রী, চালক, সুপারভাইজার, কন্ডাক্টর, হেলপার এবং টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রের দায়িত্বে নিয়োজিতদের মাস্ক পরিধান ও ব্যবহার নিশ্চিত করা এবং তাদের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে বলা হয়েছে।

            পত্রে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে গণপরিবহনে যাত্রী উঠা-নামা করতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি যাত্রার শুরু ও শেষে বাস ও মিনিবাসগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নসহ জীবাণুনাশক দিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। এছাড়া যানবাহনের মালিকগণকে যাত্রীগণের হাতব্যাগ, মালপত্র জীবাণুনাশক ছিটিয়ে জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

#

ওয়ালিদ/সাহেলা/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/২১৪০ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                         নম্বর : ৩২৬৭

কোরবানির পশুবাহী যানবাহনের নিরাপত্তা বিধান

ও ফেরিতে অগ্রাধিকার প্রদানে মন্ত্রণালয়ের চিঠি

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

            কোরবানির পশুবাহী যানবাহনের নিরাপত্তা বিধান ও যানবাহনসমূহকে ফেরি পারাপারে অগ্রাধিকার প্রদানের জন্য চিঠি দিয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

            আজ রাজধানীর সচিবালয়ে আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে কোরবানির পশুর বিপণনে বিকল্প বাজার ব্যবস্থাপনা বিষয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভা শেষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগে এবং নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে এই চিঠি পাঠানো হয়েছে।

            চিঠিতে কোরবানির পশুবাহী যানসমূহ যাতে কোনো চাঁদাবাজি বা হয়রানি ছাড়াই নির্বিঘ্নে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং এ ধরনের যানবাহন যাতে ফেরি পারাপারে ও রাস্তায় অগ্রাধিকার পায় সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

            অপরদিকে কোরবানির পশু পরিবহন, বিক্রয় ও বিক্রয় পরবর্তীতে গবাদিপশুর ব্যবসায়ীরা যাতে ছিনতাই, ডাকাতি বা কোন প্রকার নিরাপত্তাহীনতায় না পড়েন সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আজ জননিরাপত্তা বিভাগে অপর একটি চিঠি পাঠিয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

#

ইফতেখার/সাহেলা/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/২১২০ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                          নম্বর : ৩২৬৬

স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে কোন ছাড় নয়

                          -- নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

            নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে কোন ছাড় নয়। ডেক এবং চেয়ারে ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। জরিমানা করা হবে। এক্ষেত্রে সরকার খুব কঠোর। নৌপথে ঈদযাত্রায় মানুষকে সুরক্ষিত রাখাই বড় চ্যালেঞ্জ হবে। শতভাগ মাস্ক পড়তে হবে।

            প্রতিমন্ত্রী আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে লঞ্চ, ফেরি ও স্টিমারসহ জলযান চলাচল সংক্রান্ত ঈদ ব্যবস্থাপনা সভার (জুম) শুরুতে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

            খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বাস বা ট্রেনের ক্ষেত্রে যেভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানা সম্ভব, লঞ্চের ক্ষেত্রে অনেক সময় সেটা কঠিন। তারপরও সরকার ডেকে ‘মার্কিং’ করে দিয়েছে। মার্কিং অনুযায়ী চলতে হবে। লঞ্চ মালিকরা যদি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে শিথিলতা দেখায় তাহলে তাদেরকে ছাড় দেয়া হবে না।

            প্রতিমন্ত্রী বলেন, ঈদের পর একদিনের মধ্যে রাজধানীতে ফেরার ক্ষেত্রে নৌপথে ফিরতি চাপ কম হবে। কারণ কলকারখানা ছুটি থাকবে। বেশিরভাগ মানুষ ঢাকাতেই থাকবে। আর যারা গ্রামে যাবে তারা ছুটিতে থাকবে। সবার সহযোগিতায় এসব চাপ মোকাবিলা সম্ভব হবে।

            এসময় অন্যান্যের মধ্যে মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী, বিআইডব্লিউটিসি’র চেয়ারম্যান সৈয়দ এম তাজুল ইসলাম, নৌপরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমডোর আবু জাফর মো. জালালউদ্দিন এবং বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক উপস্থিত ছিলেন।

#

জাহাঙ্গীর/সাহেলা/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/২০৪৫ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                         নম্বর : ৩২৬৫

 দেশের কমিউনিটি হাসপাতালে টেলিমেডিসিন সেবা চালু

ও ২ হাজারের বেশি হাসপাতালকে ডিজিটাইজড করা হবে

                                            -- আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

            তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক বলেছেন, দেশের ১৬ হাজার কমিউনিটি হাসপাতালে টেলিমেডিসিন সেবা চালু এবং ২ হাজারের বেশি হাসপাতালকে ডিজিটাল পদ্ধতির অধীনে আনা হবে।

            আজ ‘করোনাকালে স্বাস্থ্যখাতে ডিজিটাইজেশন’ নিয়ে আয়োজিত ভার্চুয়াল সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী একথা বলেন।

            জুনাইদ আহ্মেদ পলক দেশের চিকিৎসা খাতকে পুরোপুরি প্রযুক্তিনির্ভর করা হবে উল্লেখ করে বলেন, প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে কেন্দ্রীয়ভাবে পরিচালিত হবে দেশের প্রতিটি হাসপাতাল।

            প্রতিমন্ত্রী বলেন, সেন্ট্রালাইজড হেলথ ম্যানেজমেন্ট  সফটওয়্যারের মাধ্যমে মেডিসিন ও ডায়াগনসিস রেকর্ডগেুলো ইন্টারঅপারেবল সিস্টেমের আওতায় আনা হবে। এছাড়া সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালের মধ্যে তথ্য আদান-প্রদান এবং প্রত্যেক নাগরিক যেন তার হেলথ রেকর্ড ডিজিটালি সংরক্ষণ করতে পারেন সে উদ্যোগ নেওয়া হবে। তিনি বলেন, এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে সমন্বিতভাবে প্রায় ১৬শ’ কোটি টাকার ডিজিটাল হেলথ ফর নেশন প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে। এর অধীনে পরীক্ষামূলকভাবে পাইলট প্রকল্প হিসেবে সিলেট ওসমানী মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে ৩০ ধরনের স্থাস্থ্য সেবা ডিজিটাল করা হচ্ছে। পরে প্রতিটি জেলা-উপজেলা হাসপাতালে এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে।

            প্রতিমন্ত্রী আরো জানান, আইসিটি বিভাগের নিজস্ব উদ্যোগে গত করোনাকালীন ১৬ মাসে তথ্য ও সেবা সবসময় হেল্পলাইন ৩৩৩ এর মাধ্যমে ৬০ লাখের অধিক মানুষ সেবা নিয়েছে। আইসিটি বিভাগের তৈরি ভ্যাকসিন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ‘সুরক্ষা’ অ্যাপে ৯৮ লাখ মানুষ ভ্যাকসিন নিতে নিবন্ধিত হয়েছেন।

            সেমিনারে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক এ বি এম মাকসুদুল আলম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ইসমাইল খান, সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেলের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ব্রায়ান বঙ্কিম হালদার, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম ও স্বাস্থ্য বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সৈয়দ মুজিবুল হক ও ইজেনারেশনের শামীম আহসান সংযুক্ত থেকে বক্তব্য রাখেন।

#

শহিদুল/সাহেলা/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/২০৩০ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                                                                                                                                            নম্বর : ৩২৬৪

 

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

 

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই):  

 

            স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৪২ হাজার ৪৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১২ হাজার ৩৮৩ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১০ লাখ ৫৯ হাজার ৫৩৮ জন। 

 

            গত ২৪ ঘণ্টায় ২১০ জন-সহ এ পর্যন্ত ১৭ হাজার ৫২ জন এ রোগে মৃত্যুবরণ করেছেন।

 

          করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৮ লাখ ৯৭ হাজার ৪১২ জন।

 

#

 

ফেরদৌস/সাহেলা/সঞ্জীব/আব্বাস/২০২১/২০০০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ৩২৬৩

 

ব্রাসেলসে তথ্যমন্ত্রী

ইউরোপীয় পার্লামেন্টে বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ গ্রুপ গঠনের আলোচনা

 

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই):

 

          ইউরোপীয় পার্লামেন্টে বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ গ্রুপ গঠনের বিষয়ে এমইপি সারা ম্যাথিউ'র সাথে আলোচনা করেছেন বেলজিয়াম সফররত তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহ্‌মুদ। 

 

          আজ ব্রাসেলসে বেলজিয়ামের গ্রিন পার্টি থেকে নির্বাচিত মেম্বার অভ্ ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট (এমইপি) সারা ম্যাথিউ'র সাথে বৈঠকে এ নিয়ে মতবিনিময়কালে তথ্যমন্ত্রীর সাথে বেলজিয়ামে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাহবুব হাসান সালেহ উপস্থিত ছিলেন। 

 

          ইউরোপীয় ইউনিয়ন-ইইউ'র ২৭টি দেশের প্রতিনিধিদের নিয়ে ৭০৫ আসনের বিশ্বের সর্ববৃহৎ আন্তঃদেশীয় এই পার্লামেন্টে বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ গ্রুপ গড়ে তোলা নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি ইইউ এবং বেলজিয়ামের সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক বিশেষ করে তৈরি পোশাক রপ্তানি বৃদ্ধি নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়েছে বলে জানান বেলজিয়ামের লিম্বুর্গ ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাম থেকে পরিবেশ রসায়নে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনকারী মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ। 

 

          চলতি সপ্তাহব্যাপী ইউরোপ সফরের অংশ হিসেবে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ গত শনিবার ঢাকা থেকে ব্রাসেলসে পৌঁছান। আগামী ১৮ জুলাই তার ঢাকা ফেরার কথা রয়েছে।

 

#

আকরাম/সাহেলা/সঞ্জীব/আব্বাস/২০২১/২০৩২ ঘণ্টা  

তথ্যবিবরণী                                                                                                                          নম্বর : ৩২৬২

দুই ও পাঁচ টাকা মূল্যমানের নতুন নোট আসছে আগামীকাল

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

            বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি সংবলিত ২ ও ৫ টাকার কারেন্সি নোটে সিনিয়র অর্থ সচিব আব্দুর রউফ তালুকদারের স¦াক্ষর সংযোজন করে নতুন নোট মুদ্রণ করা হয়েছে যা আগামী ১৫ জুলাই বাংলাদেশ ব্যাংকের মতিঝিল অফিস হতে ইস্যু করা হবে। পরে বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্যান্য অফিস থেকেও নোটটি ইস্যু করা হবে।

            নতুন ২ ও ৫ টাকা মূল্যমান নোটের রং, পরিমাপ, জলছাপ, ডিজাইন ও অন্যান্য নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য বর্তমানে প্রচলিত নোটের অনুরূপ হবে। নতুন মুদ্রিত উপরোক্ত নোটের পাশাপাশি বর্তমানে প্রচলনে থাকা ২ ও ৫ টাকা মূল্যমানের কাগুজে নোট ও ধাতব মুদ্রা যুগপৎ চালু থাকবে।

#

মাহবুবুল/সাহেলা/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/২০০০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                                                                                                                                            নম্বর : ৩২৬১

রূপপুর প্রকল্পে কর্মরতদের করোনার টিকাদান শুরু

ঈশ্বরদী (পাবনা ), ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই):

          দেশব্যাপী করোনা মহামারি পরিস্থিতির ক্রমাবনতির প্রেক্ষাপটে নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে কর্মরতদের করোনার টিকা প্রদান আজ থেকে শুরু হয়েছে। রাশিয়া সরকারের সহযোগিতায় ‘স্পুটনিক ভি’ টিকাদান কার্যক্রম উদ্বোধন করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান।

          মন্ত্রী বলেন, প্রকল্পের কাজ নিরুদ্বিগ্নভাবে এগিয়ে নেয়ার জন্য রাশিয়ানদের সাথে সাথে কর্মরত বাংলাদেশিদেরও টিকা প্রদানে রাশিয়া সরকার সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন। এজন্য তিনি রাশিয়া সরকারকে অভিনন্দনের সাথে সাথে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, প্রকল্পে কর্মরত পরমাণু শক্তি কমিশনের ৭৫০ জনকে টিকাদান শুরু হলো। এছাড়া প্রকল্পের বিভিন্ন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত যারা কাজ করছেন, তাদেরও ক্রমান্বয়ে টিকা দেয়ার  কথা জানানো হয়েছে। প্রয়োজনে সরকার সহযোগিতা করবে। এসময় মন্ত্রী টিকা প্রয়োগে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: আসমা খান ও তার টিমকে সহযোগিতার জন্য আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

          প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর জানান, প্রকল্পে কর্মরত সকলকেই করোনার টিকার আওতায় আনা হচ্ছে। ইতোমধ্যে রাশিয়ানসহ বিদেশিদের টিকাদান শেষ পর্যায়ে। বাংলাদেশিদেরও টিকা প্রদান আজ শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশি যারা প্রকল্পে কাজ করছে তাদেরও শতভাগ টিকা দেয়া হবে । প্রথমদিনে ৫২ জনকে টিকা প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি জানান, ডাক্তার-নার্স এবং কাজের সাথে জড়িতদের  টিকা দেয়া হয়েছে।

          রাশিয়ান এটমস্ট্রয় এক্সপোর্টের ভাইস প্রেসিডেন্ট আলেক্সি ডেইরি, রাশিয়ান চিকিৎসক মরোজভ, প্রকল্পের সাইট ইনচার্জ রুহুল কুদ্দুস এসময় উপস্থিত ছিলেন।

#

বিবেকানন্দ/সাহেলা/সঞ্জীব/আব্বাস/২০২১/২০৪০ ঘণ্টা  

তথ্যবিবরণী                                                                                                               নম্বর : ৩২৬০

 

৫০ বছরে দেশে চালের উৎপাদন বেড়েছে চার গুণ

                                                                 -- কৃষিমন্ত্রী

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

          কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও দূরদর্শিতায় সরকারের কৃষিবান্ধব নীতি গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ফলে দেশে কৃষিখাতে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে গত ৫০ বছরে চালের উৎপাদন বেড়েছে চার গুণ। ১৯৭১-৭২ সালে যেখানে চাল উৎপাদন ছিল মাত্র ১ কোটি মেট্রিক টন, সেখানে ২০২০ সালে তা বেড়ে প্রায় ৪ কোটি মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে। একসময়ের খাদ্য ঘাটতির দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

          মন্ত্রী আজ কৃষি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষ থেকে ভার্চুয়ালি আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ইরি) আয়োজিত ‘কোভিড পরিস্থিতিতে জলবায়ুসহনশীল কৃষি ও খাদ্য ব্যবস্থার রূপান্তর’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন।

          শুধু চালের মোট উৎপাদন নয়, চালের উৎপাদনশীলতায়ও দেশ অনেক এগিয়ে গেছে উল্লেখ করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ১৯৯১ সালে হেক্টরপ্রতি চালের গড় উৎপাদন ছিল ১ দশমিক ৭১ টন। আর ২০২০ সালে হেক্টরপ্রতি চাল উৎপাদন হয়েছে গড়ে চার টনেরও বেশি। কৃষি গবেষণার মাধ্যমে ফসলের উন্নত জাত ও প্রযুক্তি উদ্ভাবন, কৃষি উপকরণে ভর্তুকি প্রদান ও সহজলভ্যকরণ, সারের সুষম ব্যবহার নিশ্চিতকরণ, সেচসুবিধা সম্প্রসারণ, বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়ানোর জন্য লাগসই কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবনের ফলেই এ সাফল্য অর্জিত হয়েছে।

          ড. রাজ্জাক আরো বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে বেশি বিরূপ প্রভাব পড়বে দক্ষিণ এশিয়ার কৃষিতে। এর ফলে দক্ষিণ এশিয়ার খাদ্য ব্যবস্থা দুর্বল হবে। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সম্মিলিতভাবে জলবায়ুসহনশীল কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবনে কাজ করতে হবে।

          বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলা, উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি এবং প্রতিকূলতাসহিষ্ণু উন্নতমানের জাত ও প্রযুক্তি উদ্ভাবন করে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির কার্যক্রম জোরালোভাবে চলছে বলে আজকের সংলাপে জানান মন্ত্রী।

         কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোঃ মেসবাহুল ইসলাম, অতিরিক্ত সচিব মোঃ রুহুল আমিন তালুকদার, ইরির দক্ষিণ এশিয়া আঞ্চলিক প্রতিনিধি ড. নাফিস মিয়া ও গবেষণা পরিচালক ড. অজয় কোলিসহ বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধি এ সংলাপে অংশগ্রহণ করেন।

          আগামী সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য জাতিসংঘের ‘ফুড সামিট ২০২১’ কে সামনে রেখে ইরি দক্ষিণ এশিয়ার দেশসমূহের জন্য এ সংলাপের আয়োজন করে। দেশসমূহ কৃষিতে অর্জিত সাফল্য, বর্তমান পরিস্থিতি ও ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ সংলাপে তুলে ধরে। এই আলোচনায় প্রাপ্ত সুপারিশসমূহ জাতিসংঘের ‘ফুড সামিট ২০২১’ এ আন্তর্জাতিক পলিসি প্রণয়ন ও কর্মসূচি পরিচালনায় সহায়ক হবে।

#

কামরুল/সাহেলা/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/১৯২০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                                                                                                                                            নম্বর : ৩২৫৯

 

বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে ভূমিকা অব্যাহত রাখতে চায়

ওআইসিভুক্ত দেশগুলোর আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে খাদ্যমন্ত্রী

 

খুলনা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই):

 

ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি) ভুক্ত দেশগুলোর খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে বাংলাদেশ অব্যাহত ভূমিকা রাখতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্বাস করতেন পারস্পরিক সহযোগিতা ও সমন্বয়ের মাধ্যমে উন্নয়নকে তরান্বিত করা সম্ভব। সে ভাবনা থেকেই ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ ওআইসির সদস্য হয়ে মুসলিম উম্মাহর সামগ্রিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে। করোনাকালে ওআইসিভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা আরো বৃদ্ধির আহ্বান জানান তিনি।

 

আজ সচিবালয়ে তাঁর অফিস কক্ষে ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন ‘বেস্ট প্রাক্টিস ফর বিল্ডিং সাসটেইনেবল ফুড সিস্টেমস ইন দ্য ওআইসি রিজিয়ন’ (International Conference on ‘Best Practice for Building Sustainable Food System Summit in the OIC Region’) শীর্ষক আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে সূচনা বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

 

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে খাদ্য নিরাপত্তায় বাংলাদেশের অর্জনসমূহ মাইলফলক। ১৯৭১ সালের তুলনায় দেশে খাদ্য উৎপাদন বেড়েছে তিনগুণ । বর্তমান সরকারের কৃষিবান্ধব বহুমুখী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ফলে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়েছে। খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে সরকার ২০১৬ থেকে ২০২০ মেয়াদে দ্বিতীয় বিনিয়োগ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে। প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বে বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ কালেও বাংলাদেশে খাদ্যাভাব হয়নি বলে উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

 

অনুষ্ঠানে গাম্বিয়া রিপাবলিকের কৃষি মন্ত্রী অ্যামিই ফ্যাবুরেহ; গায়ানার কৃষি ও সমবায় মন্ত্রী মুস্তাফা জুলফিকার, তাজিকিস্থানের কৃষি মন্ত্রী জিওজোডা সুলায়মন রিজই, মিশরের কৃষি ও ভূমি পুনরুদ্ধার মন্ত্রী মারজুক আল কাওসার; বেনিনের কৃষি, প্রাণি ও মৎস্য বিষয়ক মন্ত্রী গাস্টন কোসি ডোসুহই; ওআইসির খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক মহাপরিচালক আর্লান এ বাইদুলেত; সংযুক্ত আরব আমিরাতের খাদ্য ও পানি নিরাপত্তা বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মারিয়ম আল মেহিরি; আন্তর্জাতিক ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি) এর অর্থনীতি বিষয়ক সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ড. আহমাদ কাবেসা সেনজেনডো এবং জাতিসংঘ সেক্রেটারি জেনারেলের ২০২১ ফুড সিস্টেম সামিটের বিশেষ প্রতিনিধি  ড. এগনেস কালিবাটা বক্তব্য রাখেন।

 

অনুষ্ঠানে বক্তারা আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, সম্মেলনটি খাদ্য নিরাপত্তা, খাদ্য সরবরাহ চেইন পরিচালন, কৃষির বিকাশ এবং জাতীয় খাদ্য সিস্টেমের সংলাপের ক্ষেত্রে সর্বোত্তম অভিজ্ঞতা শেয়ার করে নেওয়ার পাশাপাশি ওআইসি সদস্যভুক্ত রাষ্ট্রগুলোতে টেকসই খাদ্য ব্যবস্থা নিশ্চিত করার শক্তিশালী প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে।

 

আন্তর্জাতিক এই কনফারেন্সে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে প্রথম অধিবেশন ‘খাদ্য সুরক্ষা প্রশাসন: বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা’ উপস্থাপন করেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের খাদ্য পরিকল্পনা ও পর্যবেক্ষণ ইউনিটের মহাপরিচালক মোঃ শহিদুজ্জামান ফারুকী। দ্বিতীয় অধিবেশনে ‘জাতীয় খাদ্য ব্যবস্থা সংলাপ: বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা’ উপস্থাপন করেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব খাজা আবদুল হান্নান। অনুষ্ঠানে ওআইসি সদস্যভুক্ত রাষ্ট্রগুলোর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীবর্গ, কৃষি ও খাদ্য গবেষক এবং কর্মকর্তাগণ ভার্চুয়ালি অংশ নেন।

                                                                                                                                

                               #

কামাল/সাহেলা/সঞ্জীব/আব্বাস/২০২১/১৮৪২ ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                                              নম্বর : ৩২৫৮

খুলনা বিভাগে করোনাকালীন অসহায় জনগোষ্ঠীর মাঝে ত্রাণ বিতরণ

ঢাকা, ৩০ আষাঢ় (১৪ জুলাই) :

          কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ প্রতিরোধে চলমান কঠোর লকডাউনের মধ্যে আজ খুলনা বিভাগের খুলনা, কুষ্টিয়া ও বাগেরহাট জেলায় অসহায়, কর্মহীন বিভিন্ন শ্রেণির প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে সরকারি ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

          খুলনা সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে আজ কেসিসি’র সাতটি ওয়ার্ডে করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায়, দুস্থ ও নিম্নআয়ের শ্রমজীবীদের মাঝে জনপ্রতি সাত কেজি চাল এবং সবজি ক্রয়ের জন্য নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়। নগরীর ৩১, ১০, ২৯, ২২, ১৮, ১৯ ও ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের প্রতিটি ওয়ার্ডে চারশত ২৮ জন হিসেবে মোট দুই হাজার নয়শত ৯৬ জনের মাঝে এই খাদ্যসহায়তা বিতরণ করা হয়।

          কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আজ ২০০ টি দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে ২ মেট্রিক টন চাল এবং উপকারভোগীর মাঝে নগদ ১০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়। এছাড়াও ভিজিএফ (খাদ্যশস্য) বিতরণ কার্যক্রমের আওতায় ১ হাজার টি উপকারভোগী পরিবারের মাঝে ১০ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়। এছাড়া ৩৩৩ হেল্পলাইনে ফোন করলে আরো ১ টি পরিবারকে ১০ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি পেঁয়াজ, ১ লি

2021-07-14-15-52-e33dc62de9919a98135cd32c82673ee8.docx 2021-07-14-15-52-e33dc62de9919a98135cd32c82673ee8.docx

Share with :

Facebook Facebook