তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৬ জুলাই ২০২১

তথ্যবিবরণী ২৬ জুলাই ২০২১

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর :  ৩৪৬০

সরকার স্টার্টআপ সংস্কৃতি গড়তে নতুন নতুন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে

                                                           -- আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ  (২৬ জুলাই) :

          তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, স্থানীয় স্টার্ট-আপ ইকোসিস্টেম উন্নয়ন প্রচেষ্টাই হচ্ছে নতুন উদ্ভাবনের মূল ভিত্তি। তিনি বলেন, সরকার স্টার্টআপ সংস্কৃতি গড়ে তুলতে এবং এর উন্নয়ন ও বিকাশে আইডিয়া প্রকল্প এবং স্টাট-আপ বাংলাদেশ কোম্পানি লিমিটেড প্রতিষ্ঠাসহ নতুন নতুন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসমূহের মাধ্যমে তরুণ উদ্ভাবকদের মেন্টরিং, কোচিং, হাইটেক পার্কসমূহে সিডমানি প্রদানসহ বিভিন্নভাবে সহায়তা প্রদান করছে।

          প্রতিমন্ত্রী আজ রাতে : “Startup Landscape in Bangladesh & India: Tech Startups Transforming the Future” শীর্ষক ওয়েবিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

          অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইসামি।

          জনাব পলক বলেন, গত ৪ বছরে ফিনটেক, লজিস্টিক এবং ডিজিটাল ই-কমার্সসহ স্টার্টআপ সেক্টরে ৩০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা সম্ভব হয়েছে।

          তিনি বলেন, আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে দেশে ৩৯টি হাইটেক পার্ক, ৬৪টি শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেশন সেন্টার, ১৫টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব, চতুর্থ শিল্পবিপ্লব মোকাবিলায় শেখ হাসিনার ইনস্টিটিউট অভ্ ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও ইন্ডিয়ার মধ্যে স্টার্টআপ সংস্কৃতি গড়ে তুলতে এবং এ খাতের উন্নয়নে ও বিকাশে এ ধরনের কর্মসূচি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। পরে প্রতিমন্ত্রী ওয়েবিনারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

          অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেড কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক টিনা এফ জেবিন।

#

 

শহিদুল/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/২৩০০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর :  ৩৪৫৯

শুরু হতে যাচ্ছে 'বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ' শীর্ষক অনলাইন চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা-২০২১

 

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ  (২৬ জুলাই) :

          জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোকদিবস উপলক্ষ্যে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সহযোগিতায় দেশব্যাপী অনলাইনে  'বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ' শীর্ষক চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা-২০২১ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। 

          প্রতিযোগিতায় বয়সের ভিত্তিতে সারাদেশের প্রতিযোগীদের ৩টি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে যথাক্রমে 'ক': শিশু (৬-১২ বছর), 'খ': কিশোর (১৩-১৮ বছর) এবং 'গ': যুব ও অন্যান্য (১৯ বছরের ঊর্ধ্বে) এবং  চিত্রকর্মের ধরণ নির্ধারণ করা হয়েছে যথাক্রমে ড্রয়িং (পেন্সিল, কলম, রং পেন্সিল, প্যাস্টেল, চারকোল প্রভৃতি) ও পেইন্টিং (জলরং, এক্রিলিক, তৈলরং, মিশ্রমাধ্যম প্রভৃতি)।

          'বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ' শীর্ষক থিমে প্রতিযোগিতার বিষয়বস্তু নির্ধারণ করা হয়েছে- বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ, ১০ই জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন, বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবার, বঙ্গবন্ধু ও শোকাবহ ১৫ই আগস্ট এবং ১৭ই মার্চ: বঙ্গবন্ধু ও শিশুরা।

          প্রতিযোগিতায় ৩টি ক্যাটাগরিতে ১ম, ২য় ও ৩য় হিসেবে মোট ৯টি পুরস্কার প্রদান করা হবে যার মূল্যমান যথাক্রমে ২০ হাজার টাকা, ১৮ হাজার টাকা ও ১৬ হাজার টাকা। সাথে থাকছে একটি ক্রেস্ট ও সনদপত্র। তাছাড়া প্রতিটি প্রশাসনিক বিভাগীয় অঞ্চলে প্রতিটি বয়সভিত্তিক ক্যাটাগরিতে ৫টি করে মোট ১২০টি পুরস্কার প্রদান করা হবে যার মূল্যমান হবে ১ হাজার টাকা ও একটি করে সনদপত্র।

          ই-মেইলে চিত্রকর্মের আলোকচিত্র জমাদানের শেষ তারিখ আগামী ১০ সেপ্টেম্বর এবং প্রতিযোগিতার ফলাফল ঘোষণা করা হবে আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর।

          প্রতিযোগিতা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের জন্য "পরিচালক, চারুকলা বিভাগ, জাতীয় চিত্রশালা ভবন, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, ১৪/৩ সেগুনবাগিচা, রমনা, ঢাকা-১০০০, ফোন: +৮৮০২৯৫৫০৬০২, মোবাইল: +৮৮০১৮১৯৮০৬৪৬৭। ইমেইল: artcomp2021.bangabandhu@gmail.com" ঠিকানায় যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। এছাড়া প্রতিযোগিতার বিজ্ঞপ্তি ও নিবন্ধন ফরম এবং প্রতিযোগিতার ফলাফল www.moca.gov.bd ও www.shilpakala.gov.bd -এ ওয়েবসাইট হতে ডাউনলোড করে সংগ্রহ করা যাবে।

          উল্লেখ্য, প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য পূরণকৃত নিবন্ধন ফরম, চিত্রকর্মের আলোকচিত্র, আবেদনকারীর ১ কপি রঙিন ছবি ও জন্ম নিবন্ধন সনদপত্রের কপি/জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি সংযুক্ত করে artcomp2021.bangabandhu@gmail.com -এ ইমেইল আইডিতে প্রেরণ করতে হবে। আবেদন সংশ্লিষ্ট সকল ডকুমেন্টস এর সফট কপি অবশ্যই সর্বোচ্চ ৫ মেগাবাইটের মধ্যে হতে হবে। চিত্রকর্মের আলোকচিত্র অবশ্যই জেপিইজি (JPG/JPEG) ফরম্যাটে সিএমওয়াইকে (CMYK) কালার মোডে ন্যূনতম ১মেগাবাইটের মধ্যে হতে হবে।

          বর্তমান কোভিড-১৯ মহামারিকালে ছাত্র-ছাত্রীসহ সকল শিল্পীদের উজ্জীবিত করা ও জাতির পিতার আদর্শে উদ্বুদ্ধকরণের লক্ষ্যেই মূলত এ অনলাইন চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে।

#

ফয়সল/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/২২৩৬ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ৩৪৫৮

 

সাশ্রয়ীমূল্যে মানসম্পন্ন নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে

                                                         -- বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ  (২৬ জুলাই) :

 

          বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, সাশ্রয়ী মূল্যে মানসম্পন্ন নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশের ৯৯.৫ ভাগ এলাকা বিদ্যুতায়নের আওতায় এসেছে। সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থা আধুনিকায়নে যুগপোযোগি প্রকল্প নেয়া হয়েছে। গ্রাহক সেবার মান উন্নয়নেও কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

          প্রতিমন্ত্রী আজ অনলাইনে বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়ার  আঞ্চলিক পরিচালক (অবকাঠামো) এর সাথে বৈঠককালে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক ১৯৭২ সাল থেকেই বাংলাদেশকে সহযোগিতা করছে। বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক থেকে এ পর্যন্ত ৩ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পাওয়া গেছে। বর্তমানে বিদ্যুৎ খাতে ১ দশমিক ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিভিন্ন প্রকল্প চলমান রয়েছে।

          বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের সম্ভাবনা, অর্জন ও চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তির উন্নয়ন ও আধুনিক প্রযুক্তি সন্নিবেশনে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে পারে। বিদ্যুৎ সংরক্ষণ, বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ, বায়ুবিদ্যুৎ, ওশান এনার্জি থেকে বিদ্যুৎ, মানবসম্পদ উন্নয়ন, ইলেকট্রিক ভেহিক্যাল এবং সংশ্লিষ্ট নীতিমালা প্রণয়নে একসাথে কাজ করার সুযোগ রয়েছে।

          বাংলাদেশে বিদ্যুৎ খাতে বিশ্বব্যাংকের বিভিন্ন প্রকল্পসহ Energy Transition- এর প্রেক্ষিতে কীভাবে বিনিয়োগ বাড়ানো যায় এবং Cross Boarder Energy Trade- এ বাংলাদেশের অবস্থান নিয়েও আলোচনা করা হয়। সম্ভাব্য বিনিয়োগ ও সম্ভাব্য প্রকল্প নিয়েও আলোকপাত করা হয়।

          ভার্চুয়াল এই অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়ার  আঞ্চলিক পরিচালক (অবকাঠামো) Guangzhe Chen, প্রাকটিস ম্যানেজার (এনার্জি) Simon J. Stolp, প্রোগ্রাম লিডার (অবকাঠামো) Rajesh Rohatgi এবং ইআরডি’র অতিরিক্ত সচিব আব্দুল বাকী সংযুক্ত থেকে বক্তব্য রাখেন।

#

আসলাম/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/২১২০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ৩৪৫৭

 

জাতিসংঘের ফুড সিস্টেম প্রিসামিটে কৃষিমন্ত্রী

ফুড সিস্টেম শক্তিশালী করতে সম্মিলিত উদ্যোগ প্রয়োজন

 

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ  (২৬ জুলাই) :

কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে বেশি বিরূপ প্রভাব পড়বে উন্নয়নশীল দেশের ফুড সিস্টেমে। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কৃষি ও খাদ্য খাতে আরও বেশি বিনিয়োগ, গবেষণা ও উদ্ভাবন করতে হবে। সেজন্য, আরো শক্তিশালী ও জলবায়ু পরিবর্তনসহনশীল ফুড সিস্টেম গড়তে সদস্য দেশসমূহের সম্মিলিত উদ্যোগ ও অংশীদারিত্ব প্রয়োজন।

 মন্ত্রী আজ তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি ইটালির রোমে অনুষ্ঠিত ৩ দিনব্যাপী ‘জাতিসংঘের ফুড সিস্টেম প্রিসামিটের’ উদ্ভোধন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। 

কৃষি ও ফুড সিস্টেম ট্রান্সফর্মেশনের মাধ্যমে ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জনে বাংলাদেশ কীভাবে কাজ করছে এবং এক্ষেত্রে আরও কী কী প্রয়োজন হবে- এ বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী প্রিসামিটে বক্তৃতা করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে খাদ্য নিরাপত্তায় অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে। গত ৫০ বছরে চালের উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতা দুটোই চার গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০৩০ সালের মধ্যে ক্ষুধামুক্ত/ জিরো হাঙ্গার অর্জনে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তাসত্ত্বেও ২০৩০ সালের লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে জলবায়ু পরিবর্তন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, কৃষি জমি হ্রাস, শ্রমিক সংকট, খাদ্য নষ্ট ও অপচয়সহ অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, ইটালির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি, খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) মহাপরিচালক কিউ দোংয়ু, রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট পল কাগামে, জাতিসংঘের ডেপুটি মহাসচিব আমিনা মোহাম্মদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

ড. রাজ্জাক আরো বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট-এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ক্ষুধামুক্ত/ জিরো হাঙ্গার অর্জনে বাংলাদেশ কাজ করছে। একই সাথে অপুষ্টি নিরসনেও কাজ করছে। যা সরাসরি কৃষি উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতার সাথে জড়িত। এ লক্ষ্য অর্জনে উৎপাদনশীলতা দ্বিগুণ বৃদ্ধি, নিরাপদ খাদ্যের নিশ্চয়তা প্রদান ও টেকসই কৃষি ব্যবস্থার মাধ্যমে খাদ্য ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করত হবে।

আগামী সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য জাতিসংঘের ‘ফুড সামিট ২০২১’ কে সামনে রেখে এ প্রাক-সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ১৪৫টির বেশি দেশ এতে অংশগ্রহণ করছে এবং সম্মেলনটি শেষ হবে ২৮ জুলাই।

#

কামরুল/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/২০৫৬ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ৩৪৫৬

 

মমেক হাসপাতালে এ পর্যন্ত  ৬৯২ সিলিন্ডার অক্সিজেন প্রদান করেছেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

 

ময়মনসিংহ, ১১ শ্রাবণ  (২৬ জুলাই) :

 

          ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের করোনা রোগীদের জরুরি চিকিৎসা সেবার সুবিধার্থে এ পর্যন্ত ব্যক্তিগত উদ্যোগে ৬৯২ সিলিন্ডার অক্সিজেন প্রদান করেছেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

 

          প্রদানকৃত ৬৯২ সিলিন্ডার অক্সিজেনের মধ্যে বড় আকারের (৯.৮ ঘনমিটারের) ২৮ সিলিন্ডার অক্সিজেন ও ছোট আকারের (১.৩৬ ঘনমিটারের) ৬৬৪ সিলিন্ডার অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়।

 

          তাছাড়া মমেক হাসপাতালে সরবরাহের জন্য প্রতিমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আগামীকাল (২৭ জুলাই) আরো দুইশত সিলিন্ডার অক্সিজেন প্রদান করা হবে।

 

          উল্লেখ্য, করোনা রোগীদের জন্য প্রতিমন্ত্রীর এ মানবিক সহায়তা কার্যক্রম মহামারি শেষ না হওয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। 

 

#

 

ফয়সল/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/১৯৪৮ ঘণ্টা


তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ৩৪৫৫

 

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

 

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ  (২৬ জুলাই) :

 

          স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৫০ হাজার ৯৫২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৫ হাজার ১৯২ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১১ লাখ ৭৯ হাজার ৮২৭ জন। 

 

          গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪৭ জন-সহ এ পর্যন্ত ১৯ হাজার ৫২১ জন এ রোগে মৃত্যুবরণ করেছেন।

 

          করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১০ লাখ ৯ হাজার ৯৭৫ জন।

 

#

 

ফেরদৌস/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/১৮৫৬ ঘণ্টা

 

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ৩৪৫৪

দক্ষিণ কোরিয়ার ইয়নসে বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ উদ্বোধন

 

সিউল, ২৬ জুলাই :

 

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের অংশ হিসেবে সিউলে বাংলাদেশ দূতাবাস আজ দক্ষিণ কোরিয়ার ইয়নসে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাসের গ্রন্থাগারে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ উদ্বোধন করে।

 

          বিশ্ববিদ্যালয় ও দূতাবাসের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে, দক্ষিণ কোরিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম ও বিশ্ববিদ্যালয়টির গ্রন্থাগারের প্রেসিডেন্ট Yong-Cheol Kim যৌথভাবে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’টি উদ্বোধন করেন।

 

          কোরিয়ান ভাষায় অনুবাদকৃত ‘বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ’, ‘বঙ্গবন্ধু দ্য পিপলস হিরো’ ও বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র পাশাপাশি উক্ত ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’-এ রয়েছে ইংরেজী ভাষায় লিখিত জাতির পিতার জীবন ও রাজনৈতিক দর্শন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস এবং বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সম্পর্কিত বেশ কিছু তথ্যসমৃদ্ধ বই। ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’-এর এ সকল বই থেকে দক্ষিণ কোরিয়াসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের তরুণ প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন, স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় তাঁর অসামান্য আত্মত্যাগ ও অনন্য ভূমিকাসহ বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতি সম্পর্কে অবহিত হতে পারবে। এর ফলে, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক চেতনা ও আদর্শ দক্ষিণ কোরিয়ার গণ্ডী পেরিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের তরুণ প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে পড়বে। 

 

#

 

সরেন/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/১৮৪৫ ঘণ্টা 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ৩৪৫২

বিএনপি’র পরিকল্পিত লকডাউনটা কি? - তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রীর প্রশ্ন

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ (২৬ জুলাই):

          ‘বিএনপি’র পরিকল্পিত লকডাউনটা কি! সেটা ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে ১৫৮ দিন মানুষকে বন্দি করে রাখার মতো কি না’ লকডাউন নিয়ে বিএনপি’র লাগাতার সমালোচনার জবাবে এ প্রশ্ন রেখেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহ্‌মুদ। 

          আজ সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে তথ্যমন্ত্রীর সাথে মতবিনিময়কালে সাংবাদিকরা লকডাউন নিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সমালোচনার বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি একথা বলেন। 

          মির্জা ফখরুল সাহেবকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ঈদের শুভেচ্ছা জানান এবং বলেন, ‘লকডাউন নিয়ে বিএনপি’র পক্ষ থেকে একেক সময় একেক ধরনের কথা বলা হচ্ছে। লকডাউন দেয়ার আগে তারা বলেছিল দেশে কঠোর লকডাউন দেয়া দরকার। আবার লকডাউন দেয়ার পর বলছে এই লকডাউন অপরিকল্পিত। তাহলে তাদের পরিকল্পিতটা কি, সেটার প্রেসক্রিপসনটা তারা দিক।’ 

          ‘আর বিএনপি যে এসমস্ত কথা বলে, ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে দিনের পর দিন হরতাল অবরোধ ডেকে ১৫৮ দিন মানুষকে বন্দি করে রেখেছিল, জনগণের যে অসুবিধা হয়েছে, সেটা কি তাদের মাথায় ছিল না’ প্রশ্ন রেখে মন্ত্রী বলেন, আজকে তো মানুষের জীবনরক্ষার জন্য লকডাউন দিতে হচ্ছে এবং শুধু বাংলাদেশে নয়, পাশ্ববর্তী দেশ ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশসহ পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই এই পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়েছে।

          তথ্যমন্ত্রী এসময় বলেন, বাংলাদেশে আজকে প্রায় দেড় বছর করোনা। কিন্তু খেটে খাওয়া মানুষের দেশে একজন মানুষও না খেয়ে মৃত্যুবরণ করেনি। সরকার ও  আমাদের দলের পক্ষ থেকে ব্যাপক তৎপরতার কারণে মানুষের মধ্যে কোনো হাহাকার নেই। সাময়িক অসুবিধা যে হচ্ছে না, তা নয়। অবশ্যই অনেকের সাময়িক অসুবিধা হচ্ছে। তবে এ অসুবিধা সাময়িক। সবাই যদি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে তাহলে লকডাউন বিলম্বিত করতে হবে না। 

          মির্জা ফখরুলের ‘সরকার দিন দিন হিংস্র হয়ে উঠছে, বিএনপিকর্মীদের গ্রেপ্তার করছে’ এ বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে হিংস্র তার রাজনীতি বিশেষ করে ২০১৩-১৪-১৫ সালে যেভাবে মানুষকে পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ করে হত্যা করা, বহু মানুষকে ঝলসে দেয়া, বহু মানুষকে জীবনের তরে পঙ্গু করে দেয়া, এটি বাংলাদেশে আগে কেউ কখনো দেখেনি। পৃথিবীতেও সমসাময়িককালে রাজনীতির জন্য এভাবে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা কেউ দেখেনি।’ 

          ‘এখন এই লকডাউনের মধ্যে যদি কেউ ফৌজদারি মামলার আসামি হন, তিনি যদি কোনো দল করেন তাহলে তাকে গ্রেপ্তার করা যাবে না?’ প্রশ্ন রেখে ড. হাছান বলেন, ‘মির্জা ফখরুল সাহেবরা ফৌজদারি অপরাধের আসামির পক্ষ কেন নেন। কোনো রাজনীতিবিদও যদি ফৌজদারি মামলার আসামি হন, আইন এবং আদালত তো তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেবে। আইন এবং ন্যায় প্রতিষ্ঠার সাথে রাজনীতির কোনো সংশ্লেষ নেই।’ 

          এখন গ্রামাঞ্চলেও করোনা ছড়িয়েছে এ প্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি মনে করি মানুষের মধ্যে করোনার শুরুতে যে ধরনের ভীতি ছিল, সেই ভীতিটা নেই। দীর্ঘ একবছর গ্রামে করোনা না ছড়ানোর প্রেক্ষিতে গ্রামের মানুষের মধ্যে একটি ধারণা জন্মেছিল গ্রামে কখনো করোনা আসবে না। কিন্তু আজকে আমরা দেখতে পাচ্ছি, শহরের হাসপাতালগুলোতে যে রোগীরা ভর্তি হচ্ছে তার ৭০ ভাগ গ্রাম থেকে আসছে।’ 

          সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য আবারও অনুরোধ জানিয়ে ড. হাছান বলেন, নিজের সুরক্ষার জন্যই লকডাউন এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা প্রয়োজন। 

#

আকরাম/পাশা/রেজ্জাকুল/রেজাউল/২০২১/১৭৩৬ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ৩৪৫১

নিবন্ধন বাতিলকৃত ‘এনজিও কনসোর্টিয়াম’ এর সাথে আর্থিক লেনদেন থেকে বিরত থাকার আহ্বান

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ (২৬ জুলাই)

          জালিয়াতি, দুর্নীতি, অনিয়মসহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকায় বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘এনজিও কনসোর্টিয়াম’ এর নিবন্ধন বাতিল করেছে এনজিও বিষয়ক ব্যুরো।

          প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এনজিও বিষয়ক ব্যুরো’র সাম্প্রতিক এক পত্রে বলা হয়, বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘এনজিও কনসোর্টিয়াম’-এর বিভিন্ন অপরাধমূলক কার্যক্রম ‘বৈদেশিক অনুদান (স্বেচ্ছাসেবামূলক কার্যক্রম) রেগুলেশন আইন-২০১৬ আইনের ১৪ ধারায় সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হওয়ায় সংস্থাটির অনুকূলে প্রদত্ত নিবন্ধন (নিবন্ধন নং ১৪৬৪, তাং ১৯/১২/১৯৯৯ খ্রি:) বাতিল করা হয়েছে।

          ভূয়া প্রমানিত হওয়া সত্বেও ‘এনজিও কনসোর্টিয়াম’ বিভিন্ন ছোট ছোট সংস্থাকে ‘পার্টনার’ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার প্রলোভন দেখিয়ে এনজিওসমূহের নিকট হতে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আদায় করছে মর্মে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে বলে  এনজিও বিষয়ক ব্যুরো’র পত্রে উল্লেখ করা হয়।

          নিবন্ধন বাতিলকৃত এই সংস্থাটির সাথে আর্থিক লেন-দেন না করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানানো হলো।

#

পরীক্ষিৎ/সুবর্ণা/মাসুম/২০২১/১৪০০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                  নম্বর : ৩৪৫০  

ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় আরো ৪ কোটি ৬৬ লক্ষ টাকা এবং সাড়ে ৯ হাজার টন চাল বরাদ্দ

ঢাকা, ১১ শ্রাবণ (২৬ জুলাই)

          করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বিধিনিষেধসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের মানবিক সহায়তায় সারাদেশে আরো চার কোটি ৬৬ লাখ টাকা এবং নয় হাজার ৪৭৫ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দিয়েছে সরকার । দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে গতকাল এ বরাদ্দ প্রদান করা হয় ।

          কোভিড-১৯ সহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে মানবিক সহায়তা দিতে দেশের ৬৪টি জেলায় জেলা প্রশাসকদের অনুকূলে আট হাজার ৬৫০ মেট্রিক টন চাল এবং তিন কোটি এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ।

          একই ধরনের সহায়তা দিতে  সারাদেশের ১২ টি সিটি কর্পোরেশনের জন্য ৮২৫ মেট্রিক টন চাল এবং এক কোটি ৬৫ লক্ষ টাকা  বরাদ্দ দিয়েছে সরকার ।

          বরাদ্দকৃত এই ত্রাণ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও কোভিড-১৯ এর পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবহন শ্রমিকসহ কর্মহীন ও দুঃস্থ ব্যক্তিদের অগ্রাধিকারভিত্তিতে মানবিক সহায়তা হিসেবে বিতরণ করা হবে ।

          উল্লেখ্য, একই কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের মানবিক সহায়তায় চলতি মাসের

 ৪ তারিখে  সারাদেশে ১১ কোটি ৭০ লাখ টাকা এবং ২৩ হাজার ৬৩০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ।

#

সেলিম/পরীক্ষিৎ/সুবর্ণা/মাসুম/২০২১/১৪০০ ঘণ্টা

2021-07-26-17-09-0a3ecc1472510dff25e74a64bf1aa136.doc 2021-07-26-17-09-0a3ecc1472510dff25e74a64bf1aa136.doc

Share with :

Facebook Facebook