তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৭ মে ২০১৫

তথ্যবিবরণী 27/05/2015

তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ১৫৪৫

বাজার তদারকি
১৯ প্রতিষ্ঠানকে ৮২ হাজার টাকা জরিমানা

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) :
    জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয় আজ ঢাকা, সাতক্ষীরা, বরিশাল, সুনামগঞ্জ ও জামালপুরে বাজার তদারকি করে। তদারকিকালে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন লঙ্ঘনের দায়ে ১৯টি প্রতিষ্ঠানকে ৮২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
    ঢাকা মহানগরীর মতিঝিল এলাকায় অস্বাস্থ্যকর উপায়ে খাদ্যপণ্য উৎপাদনের অপরাধে স্মার্ট ঘরোয়া রেস্তোরাঁ এন্ড হোটেলকে ১৫ হাজার টাকা ও নিউ আল ইমাম হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টকে ৩৫ হাজার টাকা এবং পণ্যের মোড়কে এমআরপি লেখা না থাকা ও অস্বাস্থ্যকর উপায়ে খাদ্যপণ্য উৎপাদনের অপরাধে কোয়ালিটি সুইটস এন্ড বেকারিকে ৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
এছাড়া, পণ্যের মোড়কে এমআরপি লেখা না থাকা, পণ্যের মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা, মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বিক্রয় ও অস্বাস্থ্যকর উপায়ে খাদ্যপণ্য উৎপাদনের অপরাধে সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলায় ১টি প্রতিষ্ঠানকে ৩ হাজার টাকা, বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলায় ৬টি প্রতিষ্ঠানকে ৪ হাজার ৫শ’ টাকা, সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় ৭টি প্রতিষ্ঠানকে ১৩ হাজার ৫শ’ টাকা এবং জামালপুর সদরে ২টি প্রতিষ্ঠানকে ৪ হাজার ৩শ’ টাকা জরিমানা করা হয়।
#
মিজান/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/২১২০ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৫৪৪

নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) :
রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন : 
“নিরাপদ মাতৃত্ব নিশ্চিত করার পাশাপাশি জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দেশে ‘নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস’ পালিত হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এ উপলক্ষে আমি সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।
সুন্দর জীবন ও সুস্থ সবল নবজাতকের জন্য নিরাপদ মাতৃত্বের বিকল্প নেই। এ জন্য প্রয়োজন গর্ভবতী মায়েদের গর্ভকালীন পরিচর্যা ও নিরাপদ প্রসব বিষয়ে সকল সেবা পরিকল্পিতভাবে নিশ্চিত করা। আমি জানতে পেরেছি, নিরাপদ মাতৃত্ব বিষয়ে বর্তমান সরকারের ক্রমাগত গুরুত্ব ও বিভিন্ন কার্যকরী পদক্ষেপের ফলে বাংলাদেশে মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে। আমাকে জানানো হয়েছে, বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা, সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার সম্মিলিত প্রয়াসে বর্তমানে বাংলাদেশে মাতৃমৃত্যুর হার প্রতি লাখ জীবিত জন্মে ১৭০ এবং নবজাতকের মৃত্যুর হার প্রতি হাজারে ২৮ এ কমে এসেছে। আমি জেনে আনন্দিত যে, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিভিন্ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে প্রশংসনীয় অগ্রগতি ও কাক্সিক্ষত পথে অবস্থানের জন্য বাংলাদেশ জাতিসংঘের এমডিজি পুরস্কার অর্জন করেছে।
অগ্রগতির এই ধারা বজায় রাখার জন্য এ বছরের নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস-এর প্রতিপাদ্য ‘প্রতিটি জন্মই হোক পরিকল্পিত, প্রতিটি প্রসব হোক নিরাপদ’ যথার্থ হয়েছে। নিরাপদ মাতৃত্ব নিশ্চিত করতে সরকার ও বেসরকারি সংস্থার পাশাপাশি প্রতিটি পরিবার ও সচেতন সমাজ এগিয়ে আসবেন এই প্রত্যাশা করি। 
আমি নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস-২০১৫ এর সাফল্য কামনা করি।
খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”

#
হাসান/মিজান/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৫/১৯৫০ঘণ্টা   
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ১৫৪৩ 

সংসদ সচিবালয় কমিশনের বৈঠক অনুষ্ঠিত

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) :
সংসদ সচিবালয় কমিশনের ২৬তম বৈঠক আজ জাতীয় সংসদভবনে অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। 
কমিটির সদস্য প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা, জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ বিশেষ আমন্ত্রণে বৈঠকে যোগদান করেন।  
জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব মোঃ আশরাফুল মকবুল, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিবসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের জন্য উন্নয়ন ও অনুন্নয়নখাতে ২০৩ কোটি ৭৮ লাখ ৪৩ হাজার টাকার প্রাক্কলিত বাজেট অনুমোদন দেয়া হয়। এর মধ্যে অনুন্নয়নখাতে ১৯৭ কোটি ১৩ লাখ ৪৩ হাজার টাকা এবং উন্নয়নখাতে ৬ কোটি ৬৫ লাখ টাকা বরাদ্দের অনুমোদন দেয়া হয়। এছাড়া ২০১৬-১৭, ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেট প্রক্ষেপণ অনুমোদন করা হয়। বৈঠকে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটেরও অনুমোদন দেয়া হয়। 
এছাড়া, বিগত ২৫তম সংসদ সচিবালয় কমিশন বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি প্রতিবেদনের ওপর আলোচনা হয়। 
#

মঞ্জুর/মিজান/সঞ্জীব/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/১৯০৬ ঘণ্টা

 
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ১৫৪২ 
যারা নারী নির্যাতন করে তারা অমানুষ
   -- মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) :
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, যারা নারী নির্যাতন করে তারা অমানুষ। এই অমানুষদের শায়েস্তা করতে সরকারের অবস্থান অত্যন্ত দৃঢ়। নির্যাতনকারী যেই হোক না কেন তাকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে। 
প্রতিমন্ত্রী আজ রাজধানীর মতিঝিলে এফবিসিসিআই’র কনফারেন্স হলে ‘ডড়সবহ ইঁংরহবংং উরৎবপঃড়ৎু ড়ভ ইধহমষধফবংয’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং নারী উদ্যোক্তাদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।
এফবিসিসিআই’র সভাপতি কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এফবিসিসিআই’র প্রথম সহসভাপতি মনোয়ারা হাকিম আলী এবং সহসভাপতি মোঃ হেলাল উদ্দিন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, নারীদের সক্রিয় অংশগ্রহণের কারণে বর্তমানে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়ে ১ হাজার ৩শ’ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। পোশাক কারখানায় বর্তমানে প্রায় ৫৯ লাখ শ্রমিক কাজ করে। তার মধ্যে ৪৫ লাখই নারীশ্রমিক। তাদের পরিশ্রমেই বাংলাদেশ মধ্যমআয়ের দেশে পরিণত হচ্ছে। কাজেই, আমাদের উচিত নারীদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করা। তিনি বলেন, সুযোগ পেলে নারীরা সব করতে পারে। নারীদেরকে ব্যবসাসহ উপার্জন সহায়ক কার্যক্রমের প্রশিক্ষণ প্রদানের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। 
উল্লেখ্য, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে এফবিসিসিআই’র বাস্তবায়নে দেশের ৬৪টি জেলার চেম্বারের সহায়তায় নারী উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন রকমের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে।
#

খায়ের/মিজান/সঞ্জীব/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/১৯৪০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ১৫৪১

নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) :
    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :
“প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ২৮ মে দেশব্যাপী ‘নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস’ উদ্যাপন করা হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘প্রতিটি জন্মই হোক পরিকল্পিত, প্রতিটি প্রসব হোক নিরাপদ’ যা বর্তমান প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত সময়োপযোগী।
আমাদের সরকার গত সাড়ে ছয় বছরে দেশের স্বাস্থ্যখাতের, বিশেষ করে মাতৃস্বাস্থ্য ও শিশুস্বাস্থ্যের উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। কমিউনিটি ক্লিনিক ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র নির্মাণ, মাতৃমৃত্যু হ্রাসে জরুরি প্রসূতি সেবা প্রদান, মিডওয়াইফারি কোর্স চালু করা, গরিব ও দুস্থ মায়েদের জন্য মাতৃস্বাস্থ্য ভাউচার স্কিম চালু করা, কমিউনিটিভিত্তিক স্কিল্ড বার্থএটেন্ডেন্ট প্রশিক্ষণ কর্মসূচি, পরিবার পরিকল্পনা কর্মসূচি ও টিকাদান কর্মসূচি সাফল্যজনকভাবে বাস্তবায়নের ফলে বাংলাদেশে মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে। 
আমরা মাতৃত্বকালীন ছুটি ছয় মাসে উন্নীত করেছি। মাতৃস্বাস্থ্য সেবাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যসেবার পরিধি বৃদ্ধি করেছি। নতুন হাসপাতাল নির্মাণ, হাসপাতালগুলোতে শয্যাসংখ্যা বৃদ্ধি এবং চিকিৎসক ও নার্সসহ বিভিন্ন পর্যায়ে ব্যাপক জনবল নিয়োগ করা হয়েছে। তাঁদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। আমাদের এ সাফল্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। আমরা জাতিসংঘের এমডিজি অ্যাওয়ার্ড ও সাউথ-সাউথ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছি।
আমি আশা করি, সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং উন্নয়নসহযোগী সংস্থাসমূহের সমন্বিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার হ্রাসসহ মাতৃস্বাস্থ্য ও শিশুস্বাস্থ্য উন্নয়নের বিভিন্ন কর্মকা- আরও গতিশীল করতে সক্ষম হব।
আমি নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস ২০১৫ উপলক্ষে আয়োজিত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
  বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”
#
নুরএলাহি/মিজান/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৫/১৮০০ঘণ্টা    
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ১৫৪০
  
শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী


ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন : 

“বাংলাদেশে শিল্পচর্চা আন্দোলনের অগ্রদূত শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন-এর উনচল্লিশতম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমি তাঁর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই।

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন বাংলার প্রকৃতি, বাঙালির জীবনযাত্রা, সমৃদ্ধি, দারিদ্র্য এবং স্বাধীনতার স্পৃহা তাঁর তুলি আর ক্যানভাসে মূর্ত করে তুলেছিলেন। চিত্র ও শিল্পকলার মাধ্যমে বাঙালি সংস্কৃতিকে 
বিশ্বদরবারে পৌঁছে দিয়েছিলেন।

    ১৯৪৩ এর মন্বন্তর শিল্পী জয়নুলকে নাড়া দিয়েছিল প্রবলভাবে। দুর্ভিক্ষে জর্জরিত বিপন্ন মানুষের প্রতি শাসক ইংরেজদের অবহেলা তাঁকে বিক্ষুব্ধ করেছিল। তিনি তাঁর চিত্রকর্মে দুর্ভিক্ষের ভয়াবহ রূপ তুলে ধরেন বিশ্ববাসীর কাছে। দুর্ভিক্ষের চিত্রমালা ছাড়াও তাঁর বিদ্রোহী, মুক্তিযোদ্ধা, গুনটানা, সাঁওতাল রমণী, সংগ্রাম, গ্রামীণ নারীর চিত্রমালা এদেশের চিত্রকলার ইতিহাসে অক্ষয় কীর্তি হয়ে থাকবে।    

চারুকলা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আর্ট ইনস্টিটিউট তাঁর অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেরণায় তিনি সোনারগাঁয়ে প্রতিষ্ঠা করেন লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন।

    আমি আশা করি, শিল্পাচার্যের ভাবনা ও সৃষ্টিকর্ম নিয়ে চর্চা ও গবেষণা আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে আরও ঐশ্বর্যম-িত করবে।
        
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
  বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”
#
নুরএলাহি/মিজান/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৫/১৭৩০ঘণ্টা    
তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৫৩৯

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) :
     রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :  
    “শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ৩৯তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমি তাঁর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই।
    বিশ্ববরেণ্য চিত্রশিল্পী জয়নুল আবেদিন বাঙালির গর্ব। অসাধারণ প্রতিভা নিয়ে এই ক্ষণজন্মা শিল্পী ১৯১৪ সালে ব্রহ্মপুত্র লালিত সবুজ-শ্যামলিমা ময়মনসিংহে জন্মগ্রহণ করেন। গ্রামবাংলার সাধারণ মানুষের সহজ-সরল জীবনযাত্রা, মানুষের দুঃখ-দুর্দশা ও সংগ্রামই ছিল তাঁর চিত্রকর্মের প্রধান উপজীব্য। ব্রহ্মপুত্র নদ তাঁর ছিল আশৈশব প্রেরণার বিষয়। জয়নুলের কর্মে কেন্দ্রায়িত হয়েছে সমস্ত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে নর-নারীর শ্রম ও সংগ্রাম এবং সেই সাথে তাদের ক্ষমতার বহিঃপ্রকাশ। এ বরেণ্য শিল্পীর কল্পনার রেখা ও তুলিতে ভাস্বর হয়ে ওঠেছে ১৯৪৩ সালের ‘দুর্ভিক্ষের রেখাচিত্র’, ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের প্রেক্ষাপটে ‘নবান্ন’, ১৯৭০ সালে প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ে লাখো উপকূলবাসীর মৃত্যুতে ‘মনপুরা’র মতো হৃদয়স্পর্শী চিত্র। শিল্পীর কালজয়ী শিল্পকর্ম দেশের গ-ি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক পরিম-লেও বিপুল প্রশংসা ও স্বীকৃতি লাভ করেছে। অসাধারণ শিল্প-মানসিকতা ও কল্পনাশক্তির জন্য তিনি শিল্পাচার্য উপাধিতে ভূষিত হন। তাঁরই উদ্যোগে ১৯৪৮ সালে ঢাকা আর্ট কলেজ (বর্তমানে চারুকলা ইনস্টিটিউট) প্রতিষ্ঠিত হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং শিল্পাচার্য জয়নুলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ১৯৭৫ সালে সোনারগাঁয়ে লোকশিল্প জাদুঘর প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ময়মনসিংহে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা গ্যালারি। শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের শিল্পকর্ম আগামী প্রজন্মকে সৃজনশীল কাজে নিরন্তর অনুপ্রেরণা যোগাবে। বিশ্বখ্যাত এ বরেণ্য শিল্পী ১৯৭৬ সালের ২৮ মে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। শিল্পাঙ্গনে তাঁর অনবদ্য অবদান জাতি চিরদিন শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে। 
    আমি এ বরেণ্য শিল্পীর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করি।
    খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।” 
#

নুরএলাহি/মিজান/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৫/১৮১০ঘণ্টা  
 
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ১৫৩৮ 
 
প্রতিবন্ধী শিশুরাও যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখতে পারে
                                      - ডেপুটি স্পিকার

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) : 

জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো.ফজলে রাব্বী মিয়া বলেছেন, প্রতিবন্ধী শিশুদের কোন মতেই প্রতিবন্ধী বলা যাবেনা। এরা আমাদেরই সন্তান। একটি সাধারণ শিশুর মত এদেরও সমান সুযোগ সুবিধা পাবার অধিকার রয়েছে। বিশেষ সুযোগ সুবিধা ও ¯েœহ ভালোবাসা পেলে তারাও তাদের যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখতে পারে। ইতোমধ্যে তারা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অনেক কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছে। 

আজ রাজধানীর বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে সেভ দ্য চিল্ড্রেন এর সহযোগিতায় সেন্টার ফর সার্ভিসেস অ্যান্ড ইনফরমেশন অন ডিজঅ্যাবিলিটি (সিএসআইডি) এর আয়োজনে “শিশুদের আনন্দ মেলা”-এ প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব বিশেষ শিশুদের  জন্য অত্যন্ত আন্তরিক ও তাদের ভাগ্য উন্নয়নে নিবেদিত প্রাণ। প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল দেশে ও বহির্বিশ্বে এসব বিশেষ শিশুদের নিয়ে আন্তরিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। অসহায়দের পাশে থেকে সহযোগিতার ব্রত থাকলেই শুধু সেটা করা সম্ভব। 

সিএসআইডি পরিচালিত ২০টি স্কুলে অধ্যয়নরত আট শত প্রতিবন্ধী, অপ্রতিবন্ধী, কর্মজীবী ও পথশিশুরা এতে অংশগ্রহণ করে যারা। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে সংসদ সদস্য কাজী রোজী, সিএসআইডির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মনসুর আহমেদ চৌধুরী, নির্বাহী পরিচালক খন্দকার জহুরুল আলম, বোর্ড অব ট্রাস্টি এ এইস এম নোমান খান উপস্থিত ছিলেন।  

#

স্বপন/মোহাম্মদ আলী/অনসূয়া/খাদীজা/শুকলা/লাভলী/২০১৫/১৬৩০ ঘণ্টা  
 
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ১৫৩৭
 
আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়নে সদা প্রস্তুত থাকতে হবে
                                   - স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী

গংগাচড়া (রংপুর), ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) : 

স্থানীয় সরকার পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মোঃ মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ বলেছেন, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়নে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সদা প্রস্তুত থাকতে হবে। এ ব্যাপারে কোন প্রকার গাফিলতি বরদাশ্ত করা হবে না। 
তিনি আজ রংপুরের গংগাচড়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা সমন্বয় ও আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। উপজেলা চেয়ারম্যানসহ কমিটির সদস্যগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।  
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০০৮ সালের পূর্বে গংগাচড়া উপজেলা ছিল অবহেলিত ও অনুন্নত জনপদ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক আগ্রহে গংগাচড়াসহ রংপুর জেলা আজ উন্নয়ন ও শান্তির রোল মডেল। এ অগ্রযাত্রাকে ধরে রাখতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও জনপ্রতিনিধিদের আরো সমন্বিত ভূমিকা রাখতে হবে। 
এর আগে প্রতিমন্ত্রী দৈনিক দাবানল পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যোগদান করেন। এছাড়া গংগাচড়া গোল্ডকাপ টুর্ণামেন্টেও তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।  
#
আহসান/মোহাম্মদ আলী/অনসূয়া/খাদীজা/শুকলা/লাভলী/২০১৫/১৪৪০ ঘণ্টা  
 
তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর : ১৫৩৬

সদরঘাট থেকে শ্মশান ঘাট পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ কাজ শুরু

ঢাকা, ১৩ জ্যৈষ্ঠ (২৭ মে) : 

    ঢাকা নদীবন্দর সদরঘাট টার্মিনাল এলাকায় যানজট হ্রাস এবং প্রস্তাবিত শ্মশানঘাট টার্মিনাল এলাকায় স্বাভাবিক বন্দর সুবিধাদি উন্নয়নের মাধ্যমে যাত্রী চলাচল সহজীকরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহণ কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) নিজস্ব অর্থায়নে ‘সদরঘাট হতে শ্মশান ঘাট পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ’ কাজ আজ শুরু হয়েছে। নৌ-পরিবহণ মন্ত্রী শাজাহান খান, এমপি এ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।
    এ উপলক্ষে সদরঘাট টার্মিনালে আয়োজিত এক সুধী সমাবেশে মন্ত্রী বলেন, সরকার নৌ সেক্টরের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। দক্ষিণাঞ্চলের লঞ্চ যাত্রীদের সুবিধার্থে পোস্তগোলা এলাকায় আধুনিক সুযোগ সুবিধা সমৃদ্ধ একটি টার্মিনাল ভবন নির্মাণ করা হবে। সদরঘাটের যানজট নিরসন এবং দোকানদার ও হকারদের সুবিধার্থে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালের বিপরীতে বহুতল বিশিষ্ট মার্কেট নির্মাণ করতে তিনি ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের প্রতি আহ্বান জানান। 
    বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন, সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, সংসদ সদস্য হাজী মোঃ সেলিম এবং বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল (যাপ) সংস্থার চেয়ারম্যান মাহবুবউদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম।
    প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে প্রায় ২০ কোটি টাকা। এর মধ্যে রয়েছে ২.৫০ কিলোমিটার আরসিসি রাস্তা ও ড্রেন, তীর রক্ষা কাজ ও স্পার নির্মাণ। ২০১৬ সালের জুনের মধ্যে এ রাস্তার নির্মাণ কাজ শেষ হবে।
#

জাহাঙ্গীর/মোহাম্মদ আলী/অনসূয়া/খাদীজা/শুকলা/আসমা/২০১৫/১৪৩০ ঘণ্টা

 

Todays handout (3).doc Todays handout (3).doc

Share with :

Facebook Facebook