তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৬ জুলাই ২০২২

তথ্যবিবরণী ৬ জুলাই ২০২২

তথ্যবিবরণী                                                                                                            নম্বর : ২৭৪৫

নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবার নিশ্চিত করতে  সরকার কাজ করছে

                                                                         -- খাদ্য সচিব

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :

          খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ইসমাইল হোসেন বলেছেন, সকলের জন্য নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাবার নিশ্চিত করার কাজটি যথেষ্ট চ্যালেঞ্জিং। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সরকার কাজ করছে।

          আজ বিশ্বখাদ্য দিবস ২০২২ উদযাপন উপলক্ষ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবে ইনস্টিটিউশন অভ্ ফুড প্রফেশনালস, বাংলাদেশ ও ফুড সেফটি মুভমেন্ট আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে খাদ্য সচিব এ কথা বলেন।

          অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল কাইয়ুম সরকার, এফবিসিসিআই এর ভাইস প্রেসিডেন্ট আমিন হেলালী, গেইন বাংলাদেশ এর কান্ট্রি ডিরেক্টর রুদাবা খন্দকার, ইউএসআইডির কান্ট্রি লিড পলিসি এর ফাহিম খান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইনস্টিটিউশন অভ্ ফুড প্রফেশনালস, বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট মঞ্জুরুল হক।

          প্রধান অতিথি বলেন, আমরা অনেক পথ এগিয়ে এসেছি বলেই এখন খাদ্য নিরাপদ কিনা সে প্রশ্ন সামনে আসছে। এখন থেকে ৩০ বছর আগের বাংলাদেশের কারো মাথায় নিরাপদ খাদ্যের একটি আন্দোলন হতে পারে বা প্রয়োজন হতে পারে  এমন চিন্তা দুরুহ ছিলো। তিনি বলেন, আমরা অনেক খানি এগিয়েছি এটা যেমন সত্য, তেমনি আমাদের আরো অনেক খানি পথ সামনে যেতে হবে এটাও সত্য। এর জন্য এখন যা প্রয়োজন তা হচ্ছে, সবাইকে বেশি করে গবেষণালব্ধ জ্ঞান থেকে ইতিবাচক প্রচারণার মাধ্যমে খাদ্য নিয়ে সমাজে যে ভীতি তা দূর কারার উদ্যোগ নেয়া । কিন্তু কোনো পরিবর্তনকে মানুষ সহজে মেনে নিতে চায় না  এটাই সত্য ;এর জন্য সবাই মিলে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, বিকাশমান বাংলাদেশের জন্য ট্যুরিজম অন্যতম একটি সম্ভাবনা। এ সম্ভাবনা তৈরিতে নিরাপদ খাদ্যের গ্যারান্টি পূর্বশর্ত। তাছাড়া আমাদের রপ্তানি তালিকায়ও প্রক্রিয়াজাত খাদ্যের বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। যা নির্ভর করছে নিরাপদ খাদ্যের গ্যারান্টির উপর। তাই সম্ভাবনাকে কাজে লাগনো ও  পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ নিতে আমাদের সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। তবেই আমরা সফল হবো।

          অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন হাঙ্গার ফ্রি ওয়ার্ল্ড এর কান্ট্রি ডিরেক্টর আতাউর রহমান মিটন, এ্যালকিউমাস বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সৈয়দা কানিজ ফাতেমা, জাইকা এসিআইআরসি প্রজেক্টের জহুরুল হক, মোঃ রবিউল ইসলাম, মোঃ নাসিম উদ্দিন, গোলাম রসুল প্রমূখ।

#

কামাল/নাইচ/মোশারফ/জয়নুল/২০২২/২২৫৫ঘণ্টা

Handout                                                                                                                    Number : 2744

Newly Appointed UNFPA and UN-WOMEN Country Representatives submit Credentials to Foreign Minister

Dhaka, 6 July 2022:

            The newly appointed Country Representative of United Nations Population Fund (UNFPA) Ms. Kristine Blokhus and UN-WOMEN Country Representative Ms. Gitanjali Singh, presented their credentials through separate calls on to Foreign Minister Dr. A. K. Abdul Momen today at the Ministry of Foreign Affairs. Foreign Minister welcomed Ms. Blokhus and Ms. Singh to Bangladesh and expressed deep appreciation for long-standing cooperation between Government of Bangladesh and the two UN agencies in the socio-economic development of the country.

            Foreign Minister Momen, during his separate discussions with two Country Representatives, highlighted Bangladesh’s success story in effectively combating the COVID-19 pandemic, underscoring the low number of deaths and the widespread vaccination programme despite having initial difficulties. He also recalled Bangladesh’s commendable success in population control through public awareness building in the grassroots level without imposing any mandatory restrictions. He sought for UNFPA’s support in undertaking similar awareness programme among forcibly displaced Rohingyas in camps in Bangladesh. With UNFPA Country Representative, he also underscored Bangladesh’s success in the heath sector at grassroots level through community clinics. He expressed concern about the fact that poorer section of the population are still having larger family size, and requested UNFPA to work in this area. Foreign Minister Momen also expressed concern, with both Country Representatives, about the still prevalent scourge of early marriage and requested concerned UN agencies to assist the Government in curbing this. He also highlighted the sufferings of the people due to the ongoing flood situation in the country; and requested UN agencies’ support, through their respective mandates, in the mitigation of adverse effects of natural disasters. With the UN-WOMEN Country Representative, Foreign Minister Momen also underscored the unparallel success Bangladesh has achieved in women empowerment under the visionary leadership of Prime Minister Sheikh Hasina; citing that presently 69 Parliament Members are women apart from more than 14 thousand elected women representatives at the local governments. Highlighting Bangladesh’s success in significantly reducing maternal and child mortality, he called upon to both UNFPA and UN-WOMEN to continue assisting the Government in this area. With UN-WOMEN representative, concerning violence against women, he underscored that the rate of such crimes is much lower in Bangladesh comparing to a number of developed countries. In this regard, he also underscored the need for building awareness among both women and men. Bangladesh Foreign Minister, recalling that Bangladesh undertook a proactive role in creating UN-WOMEN, observed that the country office is needed to be further upgraded in terms of personnel. He also requested both the UN agencies to remain responsible and proactive in discharging their respective responsibilities and wished successful tenure for both the Country Representatives.

            Both Ms. Blokhus and Ms. Singh praised Bangladesh’s admirable socio-economic progress in recent years, and expressed willingness to work with the Government in further carrying forward the strong collaboration between Bangladesh and the UN system.

#

Mohsin/Nice/Mosharaf/Joynul/2022/2030hours

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৭৪৩

রাষ্ট্রপতির সাথে বেলজিয়ামে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :

          রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের সঙ্গে আজ বঙ্গভবনে সাক্ষাৎ করেছেন বেলজিয়ামে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাহবুব হাসান সালেহ।

          সাক্ষাৎকালে রাষ্ট্রদূত দায়িত্ব পালনে রাষ্টপতির দিকনির্দেশনা এবং সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

          রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেন, বেলজিয়ামের সাথে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নের পাশাপাশি বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। এই সুযোগ কাজে লাগাতে রাষ্ট্রদূতকে নির্দেশ দেন রাষ্ট্রপতি। বেলজিয়ামে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের কল্যাণে কাজ করারও পরামর্শ দেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ।

          এ সময় রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাহ উদ্দিন ইসলাম এবং সচিব সংযুক্ত মোঃ ওয়াহিদুল ইসলাম খান উপস্থিত ছিলেন।

#

ইমরানুল/পাশা/রফিক/মোশারফ/মাহমুদ/জয়নুল/২০২২/২০৩০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ২৭৪২

 

ভোটকেন্দ্র দখল ও গোপনে সিল মারার অপসংস্কৃতি টিকিয়ে রাখতেই ইভিএমে বিএনপির ভয়

                                   -- তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই):

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেছেন, ভোটকেন্দ্র দখল ও গোপনে সিল মারার অপসংস্কৃতি টিকিয়ে রাখার জন্যই ইভিএমকে ভয় পায় বিএনপি।

 

আজ রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের ইসলামী ব্যাংকিং কার্যক্রম উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন। বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ড. ইঞ্জিনিয়ার রশিদ আহমেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মোঃ তাজুল ইসলামসহ প্রতিষ্ঠানের পরিচালকবৃন্দ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

 

ড. হাছান বলেন, ‘প্রথমত কেউ তো জোর করে ক্ষমতায় থাকতে পারে না, জোর করে কেউ ক্ষমতায় যেতেও পারে না। যারা জনগণের জন্য রাজনীতি করে তারা তো জোর করে ক্ষমতায় যাওয়ার কথা ভাবেও না। যদিওবা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান জোর করে ক্ষমতায় গিয়েছিলেন। তিনি বন্দুক উঁচিয়ে ক্ষমতা দখল করেছিলেন। ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়ে দল গঠন করেছিলেন এবং জোর করে ক্ষমতায় ছিলেন। আমাদের সরকার জনগণের রায় নিয়েই ক্ষমতায় আছে, পরপর তিনটি নির্বাচনে জয়লাভ করেই আমরা সরকার গঠন করেছি।’

 

গত নির্বাচনে বিএনপি ডান-বাম, অতিডান-অতিবাম সবাইকে নিয়ে জোট গঠন করেছিল এবং বিএনপি পাঁচটি আসন পেয়েছিল উল্লেখ করেন সম্প্রচারমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আর শুধু ইভিএম নয়, বিএনপি তো সবসময় প্রযুক্তিকে ভয় পায়। বেগম খালেদা জিয়া যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন বিনা পয়সায় সাবমেরিন কেবল প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল আর তিনি বলেছিলেন এটি বসালে বাংলাদেশের গোপনীয়তা নষ্ট হবে। এই বলে সেটি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন, যে সাবমেরিন কেবল পরবর্তীতে শতশত কোটি টাকা খরচ করে আমাদের বসাতে হয়েছে।’

 

হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘দুনিয়ার সমস্ত উন্নত দেশে ইভিএম বা ইলেক্ট্রনিক ভোটের মেশিনের মাধ্যমে ভোট হচ্ছে যেমন ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানী, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া এমনকি মালয়েশিয়াতেও হয়। দুনিয়ার সব জায়গায় হয় আর আমাদের দেশে যখন আমাদের দল ইভিএমের মাধ্যমে ভোট করার প্রস্তাব দিয়েছে, এটি আমরা না দিয়ে অন্য কেউ দিলে উনারা পছন্দ করতেন, আমার ধারণা। আমরা প্রস্তাব দেয়ার পর থেকেই এর বিরুদ্ধে কথা বলছেন। তার মানে উনারা চায় যে, ভোট কেন্দ্র দখল, সিলমারা, যেগুলো জিয়াউর রহমান সাহেব চালু করেছিলেন, সেই অপসংস্কৃতিটা থাকুক। সেই অপসংস্কৃতিকে যদি বন্ধ করতে হয়, ভোটিং মেশিন বা ইভিএম ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নাই। কিন্তু তারা এটাকে ভয় পায়।’ 

 

#

আকরাম/পাশা/রফিক/মোশারফ/মাহমুদ/রেজাউল/২০২২/২০১৫ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ২৭৪১

 

বাণিজ্যিক সিনেমায় অনুদান বন্ধের দাবির তীব্র প্রতিবাদে পুরো চলচ্চিত্র পরিবার

 

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই):

বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে সরকারি অনুদান বন্ধের জন্য গুটিকয়েক নির্মাতার দাবিকে চলচ্চিত্র শিল্প ধ্বংসের ষড়যন্ত্র ও হীন স্বার্থপর অপতৎপরতা বলে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন দেশের চলচ্চিত্র শিল্পী, পরিচালক, প্রযোজক, প্রদর্শক ও চলচ্চিত্রগ্রাহক সমিতি এবং ফিল্ম এডিটরস গিল্ডসহ সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিষদ। 

আজ পৃথক পৃথক স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে তারা বলেন- ‘গত ৪ জুলাই রাজধানীর শাহবাগে কয়েকজন চলচ্চিত্র নির্মাতা বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রে সরকারি অনুদান বন্ধের দাবি জানান। চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য, দেশের জন্য এবং সর্বোপরি মানুষের সুস্থ বিনোদনের জন্য ক্ষতিকর এই দাবি আমরা কোনোভাবেই সমর্থন করি না এবং এটিকে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে চলচ্চিত্র শিল্পের ঘুরে দাঁড়ানোর বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র। আমরা সিনেমা অঙ্গনের মতলববাজ-ধান্দাবাজদের বিচার প্রার্থনা করি।’ 

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, দেশের মানুষ যে চলচ্চিত্র দেখতে চায়, হলে যায়, সেই চলচ্চিত্রকে সহায়তা দেওয়া যারা বন্ধ করতে বলে, তাদের সাথে আমরা শিল্পীরা নেই। আমরা তাদের এ ধরনের স্বার্থপর দাবির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। 

চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি ও সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিষদের নেতা সোহানুর রহমান সোহান বলেন, সরকারি নীতিমালা পুরোপুরি অনুসরণ করে দেশের চলচ্চিত্র নির্মাতা-বোদ্ধাদের নিয়ে গঠিত কমিটিই অনুদান প্রদান করে। ‘সরকার যে চলচ্চিত্র শিল্পকে রক্ষার চেষ্টা করছে, একে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে সম্মিলিত চলচ্চিত্র পরিষদ বুকের রক্ত দিতেও দ্বিধা করবে না’ বলেন তিনি।

চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির পক্ষে সাবেক সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু বলেন, স্বার্থপর আন্দোলনকারীদের বক্তব্য ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং স্বার্থসিদ্ধিমূলক। আমরা এ ধরনের অপতৎপরতার তীব্র প্রতিবাদ জানাই। 

বাণিজ্যিক সিনেমায় না দিয়ে আর্ট ফিল্মে অনুদান দেয়াকে জনগণের অর্থে জনগণের সাথে প্রতারণা উল্লেখ করে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা সুদীপ্ত কুমার দাস বলেন, সরকার যখন আর্ট ফিল্মের জন্য লাখ লাখ টাকা দিচ্ছে, তখন থেকেই আমরা বলে আসছি, সাধারণ দর্শক যে সিনেমা দেখার জন্য হলে আসে না, সেসব সিনেমাকে সরকারি অর্থ দেয়া প্রকৃত সিনেমাপ্রেমীদের সাথে প্রতারণা। 

চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির পক্ষে সাবেক সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু, চলচ্চিত্রগ্রাহক সমিতির সভাপতি আবদুল লতিফ বাচ্চু এবং ফিল্ম এডিটরস গিল্ড সভাপতি আবু মুসা দেবুও পরিচালক সমিতির সঙ্গে একমত হয়ে বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন।

উল্লেখ্য, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় গত তিন বছরে (২০২০-২১ ও ২২) ৫৭টি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের পাশাপাশি আর্টফিল্ম, ডকুড্রামা ও প্রামাণ্যচিত্রসহ ২৫টি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রকে অনুদান দিয়েছে, যা আগের বছরগুলোর তুলনায় সংখ্যা ও অনুদানের অর্থ দুই মাপকাঠিতেই বেশি।

#

আকরাম/পাশা/রফিক/মাহমুদ/রেজাউল/২০২২/১৮২৪ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                               নম্বর : ২৭৪০

বাংলাদেশের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলে বিনিয়োগে আগ্রহী সুইজারল্যান্ড

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :

            বাংলাদেশের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী সুইজারল্যান্ড। আজ সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের সাথে তাঁর দপ্তর কক্ষে সাক্ষাৎকালে এ আগ্রহের কথা জানান বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড।

            এ সময় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, সুইজারল্যান্ডের সাথে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার। বাংলাদেশ ও সুইজারল্যান্ড দ্বিপাক্ষিক যেকোনো বিষয়ে অভিজ্ঞতা বিনিময় করতে পারে। একইসাথে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করে দুই দেশের সহযোগিতার ক্ষেত্র আরো সম্প্রসারণ করা যেতে পারে।

            মন্ত্রী বলেন, আমাদের জিডিপি প্রবৃদ্ধিসহ অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রাকৃতিক সম্পদ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের একশ বছরের উন্নয়ন পরিকল্পনা মাথায় রেখে ব-দ্বীপ পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন এবং ইতোমধ্যে ডেল্টা গভর্ন্যান্স কাউন্সিল গঠন করেছেন। দেশের উন্নয়নে প্রাকৃতিক সম্পদ আমরা কাজে লাগাচ্ছি, জনসাধারণের খাদ্য ও পুষ্টি চাহিদা পূরণ করছি। সরকারের নানা পদক্ষেপে কৃষি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে অভাবনীয় পরিবর্তন হয়েছে।

            মন্ত্রী  আরো বলেন, বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দায়ী না হলেও বিশ্বের অন্যতম জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশ। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে জলবায়ুর ক্ষতিগ্রস্ত দেশসমূহের জন্য তহবিল গঠনে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব রেখেছেন। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিপূরণে উন্নত দেশসমূহের এগিয়ে আসা উচিত। প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকিপূর্ণ দেশও বাংলাদেশ। বন্যাসহ অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগে দেশের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাত ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে। সরকার ক্ষতি কাটিয়ে জলাবায়ু পরিবর্তন ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার জন্য সরকার বিশেষ প্রণোদনা ও অন্যান্য সহায়তা দিয়ে থাকে।

            রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড বলেন, দুই দেশের সহযোগিতার ৫০ বছর পূর্তিতে ২০২২ সাল থেকে ২০২৫ সাল পর্যন্ত অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রসহ নতুন সহযোগিতার কর্মসূচি নিয়ে সুইজারল্যান্ড কাজ করতে চায়। এর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলা সংক্রান্ত কার্যক্রম বৃদ্ধি করা। এর মধ্যে অন্যতম জলবায়ু পরিবর্তনজনিত অভিযোজন ও জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি হ্রাস বিষয়ক কার্যক্রমে অর্থায়ন।

            বাংলাদেশের মতো অন্য কোনো দেশে একশ বছরের পরিকল্পনা দেখিনি উল্লেখ করে নাথালি চুয়ার্ড আরো বলেন, বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের মাইলফলক অর্জন করেছে। এক্ষেত্রে সুইজারল্যান্ড অবদান রাখতে চায়। বাংলাদেশের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ চরাঞ্চলে প্রাণিসম্পদ খাতে সুইজারল্যান্ডের বিনিয়োগের সুযোগ রয়েছে। সুইজারল্যান্ডের সরকারি ও বেসরকারি খাতের বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানও এক্ষেত্রে কাজ করতে আগ্রহী।

            শ ম রেজাউল করিম যোগ করেন, বর্তমানে আমরা মাংস উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। ঈদুল আজহায় কোরবানির জন্য চাহিদার অতিরিক্ত গবাদিপশু আমাদের রয়েছে। দেশের সব মানুষের চাহিদা পূরণ করে মাংস রপ্তানির লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। বিশ্বের অনেক দেশ আমাদের কাছ থেকে মাংস আমদানি করতে চায়। সে সব দেশের চাহিদা অনুযায়ী আন্তর্জাতিক মানের মাংস সরবরাহ আমাদের লক্ষ্য। এজন্য দেশে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন মাননিয়ন্ত্রণ ল্যাবরেটরি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।         

            তিনি বলেন, বাংলাদেশ বৈদেশিক বিনিয়োগের জন্য অত্যন্ত অনুকূল ও বন্ধুত্বপূর্ণ একটি দেশ। সুইজারল্যান্ডের সরকারি ও বেসরকারি খাত বাংলাদেশের কৃষি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে সহজেই বিনিয়োগ করতে পারে। সুইজারল্যান্ডের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশের দুগ্ধ শিল্পসহ খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পে বিনিয়োগ করতে পারে। সরকার সবধরনের সুবিধা প্রদান করবে।

#

ইফতেখার/পাশা/রফিক/মাহমুদ/জয়নুল/২০২২/১৮৩০ঘণ্টা  

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                    নম্বর : ২৭৩৯

নতুন করে ২ হাজার ৭১৬ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হলো

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :

            মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের আওতায় ২ হাজার ৫১টি ও কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ৬৬৫টিসহ মোট  ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত  করা হয়েছে।

            আজ সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত ঘোষণা সংক্রান্ত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা.দীপু মনি।

            মন্ত্রী বলেন, সারাদেশে বেসরকারি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষারমান, শিক্ষার্থীদের সংখ্যা, পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ এবং পাশের হার ইত্যাদি বিবেচনা করে সরকার সময়ে সময়ে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন-ভাতাদি সরকারিভাবে দিয়ে থাকে।

            মন্ত্রী আরো বলেন, যেসব উপজেলায় কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি। সেসব উপজেলায় সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া একটি প্রতিষ্ঠানকে বিশেষ বিবেচনায় এমপিওভুক্ত করা হয়েছে। তিনি জানান, যোগ্যতা থাকার সাপেক্ষে কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও’র প্রাথমিক তালিকা থেকে বাদ পরেছে মনে করলে প্রতিষ্ঠান প্রধান ও কমিটির সভাপতির যৌথ স্বাক্ষরে ১৫ দিনের মধ্যে সচিব বরাবর আপিল আবেদন করতে পারবেন।  কোনো মিথ্যা তথ্য ও প্রমাণ দাখিল করে এমপিওভুক্ত হলে পরবর্তীতে তা প্রমাণ হলে দায়ি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

            আজকের আদেশের আগ পর্যন্ত সারাদেশে এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৬ হাজার ৪৪৮টি। সর্বশেষ ২০১৯ সালে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের আওতাভুক্ত এক হাজার ৬৫১টি এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতাভুক্ত ৯৮৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হয়েছিল।

            সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ আবু বকর ছিদ্দীক, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ কামাল হোসেন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের দায়িত্বে থাকা মহাপরিচালক অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী।

#

খায়ের/পাশা/রফিক/মাহমুদ/জয়নুল/২০২২/১৮০০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ২৭৩৮

 

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

 

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই):

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১ হাজার ৭২৮ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেছে। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৮৯ শতাংশ। এ সময় ১০ হাজার ২৩৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।             

গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত ২৯ হাজার ১৮৫ জন করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন। করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৯ হাজার ৭৯৯ জন।  

#

জাকির/পাশা/রফিক/মাহমুদ/রেজাউল/২০২২/১৭২০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                           নম্বর : ২৭৩৭

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সুনামগঞ্জের বন্যার্তদের জন্য খাবার স্যালাইন সরবরাহ

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :   

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান এর নির্দেশে ও বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন এর সহযোগিতায় ঢাকার পরমাণু শক্তি কেন্দ্র এবং সাভারের পরমাণু শক্তি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ল্যাবরেটরিতে প্রস্তুতকৃত প্রায় ৭০ হাজার ৭৩০ প্যাকেট খাবার স্যালাইন সুনামগঞ্জের বন্যার্তদের মাঝে বিতরণের জন্য গতকাল জেলা প্রশাসকের দপ্তরে প্রেরণ করা হয়। জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এই স্যালাইন গ্রহণ করেন।

#

বিবেকানন্দ/অনসূয়া/পরীক্ষিৎ/শাম্মী/রবি/মানসুরা/২০২২/১৫৩০ ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                                         নম্বর : ২৭৩৬

অনার্স ২য় বর্ষ পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ               

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০২০ সালের অনার্স ২য় বর্ষ পরীক্ষার (নিয়মিত, অনিয়মিত ও গ্রেড উন্নয়ন) ফলাফল আজ প্রকাশ করা হয়েছে। এ পরীক্ষায় ৩১টি অনার্স বিষয়ে ৮৫০ টি কলেজের মোট ৪ লাখ ৪৪ হাজার ৭৩৫ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। প্রকাশিত ফলাফল অনুযায়ী ২ লাখ ৩৭ হাজার ১২৭ জন ৩য় বর্ষে উন্নীত হয়েছে। পাসের হার ৯২ দশমিক ৬৬ শতাংশ। সন্ধ্যা ৭টা থেকে এসএমএস এর মাধ্যমে যে কোনো মোবাইল মেসেজ অপশনে গিয়ে nu<space>h2<space>Roll No লিখে ১৬২২২ নম্বরে সেন্ড করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.results.nu.ac.bdwww.nubd.info থেকে জানা যাবে।  

এলএলবি প্রথম বর্ষ পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০২০ সালের এলএলবি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফলাফল আজ প্রকাশ করা হয়েছে। পরীক্ষায় সারাদেশে মোট ১৩ হাজার ২৯৭ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১০ হাজার ১১৭ জন। পাসের হার ৭৬ দশমিক ৩ শতাংশ।   

#

আতাউর/অনসূয়া/পরীক্ষিৎ/শাম্মী/আসমা/২০২২/   ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                            নম্বর : ২৭৩৫

ডিজিটাল মানবসম্পদই পারবে প্রযুক্তি বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে

                                                                                           - মোস্তাফা জব্বার                      

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :   

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটাল মানবসম্পদ ছাড়া রোবট, এআই কিংবা আইওটিসহ ডিজিটাল বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সম্ভব হবে না। পরিবর্তিত বিশ্বে ডিজিটাল মানবসম্পদই পারবে প্রযুক্তি বিপ্লবের চ‌্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে।

          মন্ত্রী গতকাল ঢাকায় আইইবি তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগ আয়োজিত ‘এপ্লিকেশন অব রোবটিকস এন্ড অটোমেশন বাংলাদেশ টার্গেটিং ফোর্থ ইন্ডাস্ট্রিয়াল রেভোলিউশন’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, একটি দেশের বড় শক্তি হচ্ছে সে দেশের মানুষের মেধা ও জ্ঞান। বাংলাদেশের ছেলে মেয়েদের মেধা ও সৃজনশীলতা বিশ্বে অতুলনীয়। উপযুক্ত পরিবেশ পেলে তারা অভাবনীয় দক্ষতার সাথে জাতীয় অগ্রগতির অগ্রযাত্রায় বিস্ময়কর সফলতা অর্জনে সক্ষম। তিনি বলেন, রোবট, ব্লকচেইন কিংবা অন্য যে কোন প্রযুক্তি মানুষের সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করার জন্য আসছে কিন্তু কোন অবস্থাতেই তা মানুষের বিকল্প শক্তি হতে পারে না।

মোস্তাফা জব্বার আরো বলেন, অতীতে তিনটি শিল্প বিপ্লবে আমরা অংশগ্রহণ করতে পারিনি। এর ফলে প্রযুক্তিতে শত শত বছর পিছিয়ে আছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত সাড়ে তের বছরে অতীতের পশ্চাৎপদতা অতিক্রম করে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বা সোসাইটি ফাইভ জিরো কিংবা ডিজিটাল বিপ্লবের নেতৃত্বের যোগ্য করে বাংলাদেশকে এক অনন্য উচ্চতায় উপনীত করেছেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।  

মন্ত্রী ডিজিটাল প্রযুক্তি নির্ভর জাতি বিনির্মাণে অবদান রাখতে প্রকৌশলী সমাজের দায়িত্ব স্মরণ করিয়ে দেন এবং তাদেরকে কার্যকর ভূমিকা পালনে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

আইইবি তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো: আবদুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আইইবি সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো: শাহাদাৎ হোসেন শীবলু, বুয়েট অধ্যাপক ড. শেখ আনোয়ারুল ফাত্তাহ, আইইবি ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী মো: নুরূজ্জামান প্রমূখ বক্তৃতা করেন।

#

শেফায়েত/অনসূয়া/পরীক্ষিৎ/শাম্মী/রবি/মানসুরা/২০২২/১১২০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ২৭৩৪  

টেলিভিশনে স্ক্রল আকারে প্রচারের জন্য   

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভেচ্ছা

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) :  

১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক জাতীয় কমিটি’ ও ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি’র মধ্যে এক ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯৮ সালের ১৫ জুলাই পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠিত হয়।   

মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠার দিনটিকে সামনে রেখে সরকারি-বেসরকারি টিভি চ্যানেলসহ সকল ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় নিম্নোক্ত বার্তাটি স্ক্রল আকারে প্রচারের জন্য অনুরোধ করা হলো :          

মূলবার্তা :

          আগামী ‘১৫ জুলাই পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে সবাইকে শুভেচ্ছা - পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।’      

#

নাসরিন/অনসূয়া/পরীক্ষিৎ/শাম্মী/আসমা/২০২২/১৩২০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                              নম্বর : ২৭৩৩

পশুর হাটে ও কোরবানিকালীন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশিকা                                      

ঢাকা, ২২ আষাঢ় (৬ জুলাই) : 

            আসন্ন ইদুল-আজহা উপলক্ষ্যে পশুর হাট ব্যবস্থাপনায় নিম্নলিখিত নির্দেশনাসমূহ পালনের জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সরকার। নির্দেশনাগুলো হলো :

  • হাট বসানোর জন্য পর্যাপ্ত খোলা জায়গা নির্বাচন করতে হবে। কোনো অবস্থায় বদ্ধ জায়গায় হাট বসানো যাবেনা;
  • হাট ইজারাদ
2022-07-06-16-57-ae21fddfcdcf4bac4fc4386e0cca3669.doc 2022-07-06-16-57-ae21fddfcdcf4bac4fc4386e0cca3669.doc

Share with :

Facebook Facebook