তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৭ মে ২০২২

তথ্যবিবরণী ১৭ মে ২০২২

তথ্যবিবরণী                                                                                                 নম্বর : ১৯৮৫

 

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) বাস্তবায়নে প্রয়োজন সম্মিলিত ও সমন্বিত প্রচেষ্টা

                                                                     -- বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

 

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) বাস্তবায়নে প্রয়োজন সম্মিলিত ও সমন্বিত প্রচেষ্টা। অংশীদারিত্ব পন্থা (Partnership Approach) খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বাস্তবায়ন কার্যক্রমে অংশীজনদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে পারলে দ্রুত এসডিজি বাস্তবায়ন সম্ভব হবে।

 

প্রতিমন্ত্রী আজ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এসডিজি বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা বিষয়ক দ্বিতীয় জাতীয় সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, পরিবেশকে সংরক্ষণ করেই আমরা উন্নয়ন পরিকল্পনা সাজিয়েছি। পরিকল্পিত শিল্পাঞ্চলে দ্রুত বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। অপরচুনিটি কস্ট (Opportunity Cost) বিবেচনা করে প্রাকৃতিক গ্যাস ব্যবহার করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম বাড়ানো হয়েছে।

 

প্রতিমন্ত্রী এসময় বলেন, আমাদের ফুয়েল মিক্স বহুমাত্রিক। আমরা ক্লিন ও গ্রিন এনার্জিকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছি। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতকে প্রযুক্তিবান্ধব করা হয়েছে এবং হচ্ছে। বিদ্যুৎ বিভাগে ৪টি মডিউলে ইআরপি (ERP) বাস্তবায়িত হয়েছে। পেপারলেস অফিস করার কাজ করে যাচ্ছি। উন্নয়ন ও অগ্রগতির সাথে সাথে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সাশ্রয়ী এবং সহনীয় মূল্যকেও বিবেচনা করা হচ্ছে। সার্বিকভাবে বলা যেতেই পারে, টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) বাস্তবায়নে কাঙ্ক্ষিতভাবেই বাংলাদেশ সাফল্য পাবে।

 

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) বাস্তবায়ন নিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের কার্যক্রম তুলে ধরেন বিদ্যুৎ সচিব মোঃ হাবিবুর রহমান। এসডিজির ১৭টি লক্ষ্যের মধ্যে ১টি লক্ষ্য রয়েছে। ১টি লক্ষ্য, ৫টি টার্গেট ও ৬টি নির্দেশনা কীভাবে বিদ্যুৎ বিভাগে বাস্তবায়িত হচ্ছে তা পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে বর্ণনা করা হয়।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রেলপথ মন্ত্রী মোঃ নূরুল ইসলাম সুজন। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, বিদ্যুৎ বিভাগ এবং স্থানীয় সরকার বিভাগ-এর পক্ষে স্ব স্ব সচিবগণ এ সময় এসডিজি বাস্তবায়ন প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।

 

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোকাম্মেল হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মোঃ মাহবুব হোসেন ও বুয়েটের অধ্যাপক মোঃ শামসুল হক বক্তব্য রাখেন।

 

#

 

আসলাম/নাইচ/মোশারফ/সেলিম/২০২২/২২১৫ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৯৮৪

এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজ মানবতার সেবায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে

                                                                ---সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

 

সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজ মানবতার সেবায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। পিতৃমাতৃহীন, পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন, ছিন্নমূল, অনাথ শিশুদের কল্যাণে কাজ করে এ আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানটি। শিশু পল্লীর মা ও কর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রম এবং পরম স্নেহ ও মাতৃ মমতায় বেড়ে উঠছে শিশুরা। শিশু পল্লীর পরিবেশ ও সার্বিক ব্যবস্থাপনা আমাকে সত্যিই মুগ্ধ ও অভিভূত করেছে। এ ধরনের মানবতার সেবায় নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানসমূহকে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করার লক্ষ্যে এস ও এস শিশু পল্লীর রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি প্রয়োজন। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ ও সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।

 

প্রতিমন্ত্রী আজ রাজধানীর শ্যামলীস্থ এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজে এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজেস বাংলাদেশ এর ফাউন্ডেশন ডে এবং ৫০ বছর পূর্তি উদ্‌যাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

 

প্রধান অতিথি বলেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯৪৯ সালে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুদের কল্যাণে অস্ট্রিয়ার নাগরিক প্রফেসর হারম্যান মেইনার অস্ট্রিয়ার Imst শহরে প্রথম এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর ১৯৭২ সালে তিনি এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজেস প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব নিয়ে বাংলাদেশে আসেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাদরে তার এ প্রস্তাব গ্রহণ করেন। ফলশ্রুতিতে ১৯৭২ সালে ঢাকার শ্যামলীতে দেশের প্রথম এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজ বা শিশু পল্লী প্রতিষ্ঠিত হয়। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগত মমত্ববোধ থেকে এস ও এস শিশু পল্লীর শিশুদের নিয়মিত খোঁজখবর রাখেন এবং বিভিন্ন জাতীয় দিবসে ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিশেষ খাবার ও উপহার সামগ্রী পাঠান-যা হতে পারে আমাদের সবার জন্য অনুকরণীয় ও অনুসরণীয়।

 

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজেস বাংলাদেশ এর ন্যাশনাল ডাইরেক্টর ডা. মোঃ এনামুল হক। শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজেস বাংলাদেশ এর সিনিয়র ডাইরেক্টর ডালিয়া দাস ও এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজ ঢাকার প্রকল্প পরিচালক সাইফুল ইসলাম।

 

অনুষ্ঠানে ৫০ বছর পূর্তি উদ্‌যাপনের বিশেষ লোগো উন্মোচন করেন প্রতিমন্ত্রী। এছাড়া এস ও এস শিশু পল্লী ঢাকার শিশু-কিশোরদের পরিবেশনায় দলীয় নৃত্যসহ মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

 

এর আগে প্রতিমন্ত্রী ‘স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি’র উদ্বোধনের মাধ্যমে এস ও এস চিলড্রেন্স ভিলেজেস বাংলাদেশ এর ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানমালার শুভ সূচনা করেন। 

                                                #

ফয়সল/পাশা/রফিকুল/আব্বাস/২০২২/১৯০৭ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর : ১৯৮৩

ন্যায়বিচারে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা সরকারের অন্যতম লক্ষ্য

                                                                           -- আইনমন্ত্রী

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :   

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, এসডিজির অন্যতম টার্গেট জনগণের ন্যায়বিচারে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা। এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন,  ন্যায়বিচারে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে সরকার ডিজিটাইজেশনের ওপর গুরুতারোপ করেছে। এর অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট ও অধস্তন আদালতে সীমিত পরিসরে ডিজিটাইজেশন চালু করা হয়েছে। অধিকন্তু আইন ও বিচার বিভাগ একটি গণমুখী বিচার বিভাগ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে যুগান্তকারী ই-জুডিশিয়ারি প্রকল্প হাতে নিয়েছে।

মন্ত্রী আজ রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এসডিজি বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা বিষয়ক দ্বিতীয় জাতীয় সম্মেলনের প্যারালাল সেশন- ১ এ প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, জনগণের ন্যায়বিচারে প্রবেশাধিকার সংরক্ষণের জন্য করোনার মহামারিকালেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আইন ও বিচার বিভাগ ‘আদালত কর্তৃক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার অধ্যাদেশ, ২০২০ এর আওতায় ভার্চুয়াল আদালত ব্যবস্থা চালু করে।  ১১ মে ২০২০ থেকে ১০ আগস্ট ২০২১ সময়কালে এ আদালত দ্বারা মোট ৩ লাখ ১৪ হাজার ৪৮২টি পিটিশন নিষ্পত্তি করা হয়েছে এবং ১ লাখ ৫৮ হাজার ৫০৭ জনকে জামিন দেওয়া হয়েছে, যা করোনাকালে জরুরি সমস্যা মোকাবিলায় এবং কারাগারে বন্দিদের বাড়তি চাপ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন  করেছে।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার জেলা লিগ্যাল এইড অফিস, উপজেলা ও ইউনিয়ন লিগ্যাল এইড কমিটি প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ায় সরকারি আইনি সহায়তা কার্যক্রম এখন দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছে। এমনকি করোনার মহামারিকালে ভার্চুয়াল মাধ্যমে ৭৮ হাজার ৮৪৭ জনকে আইনি সহায়তা প্রদান করা হয়েছে যার মধ্যে ৩৮ হাজার ৫৩৯ জন মহিলা।

আইনমন্ত্রী বলেন, এসডিজি বাস্তবায়নের যাত্রায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ৭ম এবং ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার সাথে একটি সমন্বিত কর্মপদ্ধতি গ্রহণ করেছে এবং মন্ত্রণালয়গুলোর ম্যাপিং, আর্থিক কৌশল, পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন, ডেটা গ্যাপ বিশ্লেষণ, জাতীয় কর্ম পরিকল্পনা, এপিএ-তে এসডিজি অর্ন্তভুক্তসহ অনেকগুলো কাজ সম্পন্ন করেছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (MDGs) বাস্তবায়নের ক্ষেত্রেও বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্যের জন্য বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছিল। সেই সাফল্যের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের এমডিজি অ্যাওয়ার্ড, সাউথ-সাউথ অ্যাওয়ার্ড, চ্যাম্পিয়নস অভ্‌ দ্য আর্থ এবং প্ল্যানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়নসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিশ্ব পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

এসডিজি বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা বিষয়ক তিনদিনব্যাপী চলমান সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে আজ প্যারালাল সেশন- ১ এ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, জননিরাপত্তা বিভাগ, সুরক্ষা সেবা বিভাগ, আইন ও বিচার বিভাগ এবং লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিবগণ তাদের স্ব স্ব মন্ত্রণালয়/বিভাগের এসডিজি বাস্তবায়ন বিষয়ক অগ্রগতি প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।

এই সেশনে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বিশেষ অতিথি ও সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোসাররফ হোসেন ভূঁইয়া সঞ্চালক ছিলেন। আলোচক ছিলেন প্রতিরক্ষা সচিব গোলাম মোঃ হাসিবুল আলম ও সাবেক পররাষ্ট্র সচিব মোঃ শহীদুল হক।

#

রেজাউল/পাশা/রাহাত/রফিকুল/সেলিম/২০২২/১৯০০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                         নম্বর : ১৯৮২

এপেক ডিজিটাল ইনোভেশন কংগ্রেসে যোগদিতে সিঙ্গাপুরে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

            ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার হুয়াওয়ে এশিয়া প্যাসিফিক (এপেক) ডিজিটাল ইনোভেশন কংগ্রেসে  যোগদানের লক্ষ্যে আজ সিঙ্গাপুর পৌঁছেছেন। সিঙ্গাপুরে ম্যারিনা বে সেন্ডে আগামী ১৯ মে থেকে ২০ মে পর্যন্ত দু’দিনব্যাপী এই সম্মেলনে মন্ত্রী দুই সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিবেন। চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে এবং আসিয়ান ফাউন্ডেশন এই কংগ্রেসের আয়োজন করে। ডিজিটাল উদ্ভাবনের মাধ্যমে অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জনের কৌশল নির্ধারণ এই কংগ্রেসের লক্ষ্য। প্রতিনিধিদলের অপর সদস্য হলেন বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার।

            ২০১৯ সালে জেনেভায় অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড সামিট অন দি ইনফরমেশন সোসাইটি (ডব্লিউএসআইএস)-এর  চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনকারী প্রথম বাংলাদেশি, কম্পিউটারে বাংলা ভাষার জনক মোস্তাফা জব্বার কংগ্রেসে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন। এছাড়া কংগ্রেসের সাইড লাইনে বিভিন্ন দেশে শিল্প বাণিজ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তি বিশেষ করে

ফাইভ-জি’র প্রয়োগ ও ফলাফল বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের সাথে অভিজ্ঞতা বিনিময়ের কথা রয়েছে তার।

            কংগ্রেস শেষে আগামী ২১ মে তিনি দেশে ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

#

 শেফায়েত/পাশা/এনায়েত/রফিকুল/জয়নুল/২০২২/১৯৫৫ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১৯৮১

বহির্বিশ্বে দেশের মর্যাদা বৃদ্ধিতে কাজ করতে

ফরেন সার্ভিসের নবীন কর্মকর্তাদের প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আহ্বান

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে বহির্বিশ্বে  বাংলাদেশের মর্যাদা ও সুনাম বৃদ্ধিতে আন্তরিকভাবে কাজ করার জন্য ফরেন সার্ভিসের নবীন কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। 

আজ রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে বিশেষায়িত কূটনৈতিক প্রশিক্ষণ কোর্স (এসডিটিসি) এর সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র সচিব (সিনিয়র সচিব) মাসুদ বিন মোমেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ সময় বলেন, বর্তমান বিশ্ব-ব্যবস্থা এবং বৈশ্বিক সমস্যাগুলো সম্পর্কে নবীন কূটনীতিকদের ব্যাপক জ্ঞানার্জনের মাধ্যমে নিজেদের উপযুক্ত করে গড়ে তুলতে হবে। ড. মোমেন বলেন, একবিংশ শতাব্দীর কূটনীতিক হিসেবে ফরেন সার্ভিসের নবীন কর্মকর্তাদের জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য চিন্তা-চেতনায় কৌশলী, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির জ্ঞানে সমৃদ্ধ, কূটনৈতিক পরিমণ্ডলে যোগাযোগ, পরিচিতি বৃদ্ধি ও কথোপকথনেও নিজেদের যোগ্যতার প্রমাণ দিতে হবে। ফরেন সার্ভিস একাডেমি ফরেন সার্ভিস কর্মকর্তাদের পাশাপাশি ভবিষ্যতে অন্যান্য দেশের কর্মকর্তাদের জন্যেও আদর্শ প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে খ্যাতি অর্জন করবে বলে তিনি এ সময় আশা প্রকাশ করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ফরেন সার্ভিস একাডেমির রেক্টর আসাদ আলম সিয়াম বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অভ্ ইন্টারন্যাশনাল এন্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের মহাপরিচালক অ্যাম্বাসেডর ইমতিয়াজ আহমেদ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স) রিয়ার এডমিরাল (অব.) খুরশেদ আলম, সচিব (পশ্চিম) সাব্বির আহমেদ, সচিব (পূর্ব) মাশফি বিনতে শামস, ফরেন সার্ভিস একাডেমির মহাপরিচালক শাহ মোহাম্মদ শফি, ঢাকায় নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও ফরেন সার্ভিস একাডেমির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে ২৬তম ও ২৭তম বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশগ্রহণকারী ৩২ জন কর্মকর্তাকে সনদ প্রদান করা হয়। এছাড়া প্রশিক্ষণে অসাধারণ সাফল্য অর্জন করায় ২৬তম প্রশিক্ষণ কোর্সের ওয়ালিদ মোহাম্মদ ও ২৭তম কোর্সের মোঃ আমিনুল ইসলামকে সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী স্মারক পুরস্কার প্রদান করা হয়।

#

মোহসিন/পাশা/রাহাত/রফিকুল/আব্বাস/২০২২/১৮১৬ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                       নম্বর : ১৯৮০

১৭ মে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতন্ত্রের অগ্নিবীণার প্রত্যাবর্তন দিবস

                                                                -- তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

          তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেছেন, আজ থেকে ৪১ বছর আগে ১৯৮১ সালের ১৭ মে ব্যক্তি শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনই ছিলো না, ছিলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, গণতন্ত্রের অগ্নিবীণা ও উন্নয়ন-প্রগতির প্রত্যাবর্তন।

          আজ রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ১৭ মে প্রধানমন্ত্রীর ৪২তম ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় তার বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ বিশেষ সভায় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সূচনা বক্তব্য এবং আওয়ামী লীগসহ জাতীয় নেতৃবৃন্দ ও দেশবরেণ্য বুদ্ধিজীবীরা তাদের বক্তব্য দেন।

          ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘গত ৪১ বছরের পথ চলায় জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বদলে গেছে। গত ১৩ বছরে প্রতিটি মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে। এ অভূতপূর্ব উন্নতি সহ্য হচ্ছে না বিধায় আবার ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে, গর্তের ভেতর থেকে বিএনপি-জামাত উঁকি দিচ্ছে এবং বিশৃঙ্খলা করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।’

           নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে বলতে চাই, আমরা এখনো মাঠে নামি নাই, প্রয়োজন নামবো। যদি কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চায়, তাদের প্রতিহত করবো’

          মন্ত্রী বলেন, ‘সমস্ত প্রতিকূলতার মধ্যেও স্বল্পোন্নত থেকে মধ্যম আয়ের দেশে, খাদ্যে ঘাটতি থেকে উদ্বৃত্তের দেশে উন্নীত করে চিরদিন দেশের মানুষের পাশে থাকা শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে নতুন উচ্চতায় মর্যাদাশীল রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন। কিন্তু বিএনপি-জামাত, তাদের দোসর আর কিছু বুদ্ধিজীবীর এই উন্নয়ন-অগ্রগতি ভালো লাগে না। একারণেই সমগ্র পৃথিবী যখন প্রশংসা করে, তখনও তারা প্রশংসা করতে পারে না বরং তাদের কথায় মনে হয় দেশ দশ হাত দেবে গেছে, যা বাস্তবের বিপরীত।’

          ‘বেগম জিয়া, মির্জা ফখরুল সাহেবদের 'আওয়ামী লীগ সরকার পদ্মাসেতু করতে পারবে না' এমন মন্তব্য এখনও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়ায়' উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘এখন পদ্মাসেতু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন, আমরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি। ফখরুল সাহেবরা পদ্মাসেতুর ওপর দিয়ে যাবেন, না কি নিচ দিয়ে আওয়ামী লীগের নৌকায় করে যাবেন, সেটি ভাবছি। তাদের যদি লজ্জা থাকে, জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়ে পদ্মাসেতুর ওপর দিয়ে তারা যেতে পারেন। আমরা চাই আপনারা পদ্মাসেতু ব্যবহার করেন।’

           ‘শেখ হাসিনাকে তার হার না মানা দেশপ্রেম এবং আন্তর্জাতিক চাপের মুখে জিয়াউর রহমান দেশে ফিরতে দিতে বাধ্য হয়েছিলো' উল্লেখ করে ১৯৮১ সালের ১৭ মে'র কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী হিসেবে কাজ করে আসা মন্ত্রী হাছান বলেন, 'সে দিনের মুষলধারে বৃষ্টি যেনো ছিলো শেখ হাসিনাকে পেয়ে প্রকৃতির আনন্দাশ্রু আর মেঘগর্জন ছিলো বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের প্রতি তীব্র ধিক্কার। শেখ হাসিনাকে বরণ করে প্রকৃতি যেনো জানান দিয়েছিলো- ষড়যন্ত্রকারী, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের দিন শেষ।’

#

আকরাম/পাশা/রফিকুল/জয়নুল/২০২২/১৮০০ঘণ্টা  

তথ্যবিবরণী                                                                                                 নম্বর : ১৯৭৯

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

 

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী গতকাল সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩২ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেছে। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ। এ সময় ৪ হাজার ২৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। 

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় কেউ মারা যায়নি। এ পর্যন্ত ২৯ হাজার ১২৭ জন করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন। করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৯ হাজার ৮৯৭ জন।

#

কবীর/পাশা/এনায়েত/রফিকুল/রেজাউল/২০২২/১৭০০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                           নম্বর : ১৯৭৮

বিদ্যুৎ-জ্বালানি খাতে বিনিয়োগকে সরকার উৎসাহিত করছে

                                                    -বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :   

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিদ্যুৎ-জ্বালানি খাতে বিনিয়োগকে সরকার উৎসাহিত করছে। বেসরকারি খাতের জন্য পলিসি গাইডের খসড়া তৈরি  করা হয়েছে, যার মাধ্যমে ন্যাশনাল গ্রিড বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ব্যবহার করা যাবে। বিনিয়োগে নিরাপত্তাসহ ১৫ বছরের ট্যাক্স ওয়েবার, আমদানি শুল্কে রেয়াতসহ নানা সুযোগ-সুবিধা দেয়া হচ্ছে। স্রেডা নবায়ণযোগ্য জ্বালানির প্রসারে লজিস্টিক ও কারিগরি সহযোগিতা করছে।

প্রতিমন্ত্রী আজ Economic and Social  Commission for Asia and the Pacific (ESCAP) ও Sustainable Energy for All আয়োজিত Asia Pacific Ministerial Roundtable-এ ‘Progress and Opportunities for attracting Private Investment over the next Five Years for their National Energy Transition’ সেশনে ভার্চুয়ালি বক্তৃতাকালে এসব কথা বলেন।

 প্রতিমন্ত্রী বলেন, বেসরকারি খাতকে উৎসাহিত করায় গত দশকে বিদ্যুৎ খাতে ১২ বিলিয়ন বিনিয়োগ হয়েছে এবং আগামী ১২ বছরে ৫০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করার  পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে বেসরকারি খাত হতে শতকরা ৪৪ ভাগ আসছে। নবায়ণযোগ্য বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৫টিই বেসরকারি খাতের।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, নবায়ণযোগ্য জ্বালানি নিয়ে বেসরকারি খাতে ১০টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের চুক্তি করা হয়েছে। ‘National Solar Energy Roadmap 2021-41’ খসড়া প্রস্তুত করা হয়েছে। Mujib Climate Prosperity Plan এবং Integrated Energy and Power Master Plan এর আওতায় ক্লিন এনার্জিকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন উৎসে নবায়ণযোগ্য জ্বালানি হতে বিদ্যুৎ উৎপাদনে ২৯টি কোম্পানি আগ্রহ প্রকাশ করেছে। অফসোর উইন্ড, গ্রিন হাইড্রোজেন, ভাসমান সোলার, বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ, সোলার রূপটপ ইত্যাদি খাতে বিনিয়োগ নবায়ণযোগ্য জ্বালানির প্রসারে নতুনমাত্রা যোগ করবে। নবায়ণযোগ্য জ্বালানির বৃদ্ধি, জ্বালানি দক্ষতা, জ্বালানি সংরক্ষণ ও পরিবহণ খাতে Mujib Climate Prosperity Plan-এ ২১ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ লক্ষ্যমাত্রা প্রাক্কলন করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে Sustainable Energy for All-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডামিলুলা ওগুসবিয়ি, UN ESCAP-এর নির্বাহী সচিব আরমিদা সালসিয়াহ আসিজাবানা, ভারতের বিদ্যুৎ, নতুন ও নবায়ণযোগ্য জ্বালানি মন্ত্রী রাজ কুমার সিং, ইন্দোনেশিয়ার বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক মন্ত্রী আরিফিন তাসরিফ, নেপালের পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ড. সুরেন্দ্র লাব কর্ণ এবং  ফিজির জ্বালানি বিষয়ক পরিচালক মিকেলি বেলেনা সংযুক্ত থেকে বক্তব্য রাখেন।   

#

আসলাম/অনসূয়া/ডালিয়া/রেজ্জাকুল/শামীম/২০২২/১৬২৭ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                    নম্বর : ১৯৭৭

দক্ষতা নির্ভর শিক্ষা বিস্তারে সরকার কাজ করে যাচ্ছে

                                         - শিক্ষা উপমন্ত্রী

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :

 

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেছেন দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে সক্ষম জনগোষ্ঠী গঠনে কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত দক্ষতা নির্ভর শিক্ষা বিস্তারে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

          উপমন্ত্রী বলেন বাংলাদেশে দক্ষকর্মী তৈরি করতে বৃত্তিমূলক কাজের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দিয়ে কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রশিক্ষণ প্রদান করা যেতে পারে। তিনি বলেন, দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বিশেষায়িত বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে যৌথভাবে গবেষণা ও উদ্ভাবনী কাজের নেতৃত্ব দিতে পারে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার লিলি নিকোলস আজ শিক্ষা উপমন্ত্রীর সঙ্গে সচিবালয়ের তাঁর দপ্তরে সাক্ষাৎ করতে এলে তিনি এসব কথা বলেন।

উপমন্ত্রী আরো বলেন, দ্রুত পরিবর্তনশীল প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মেলাতে একাডেমিয়া- শিল্প সংযোগ স্থাপনের কোনো বিকল্প নেই।

কানাডার হাইকমিশনার বলেন আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারের জন্য প্রশিক্ষিত মানবসম্পদ সৃষ্টিতে বাংলাদেশের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি আরো বলেন, কানাডার দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে বাংলাদেশ দূরশিক্ষণ ও ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে দক্ষতা ভিত্তিক শিক্ষা বিস্তারে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করতে পারে। কর্মমুখী ও দক্ষতা ভিত্তিক শিক্ষা বিস্তারে তার দেশ বাংলাদেশকে বিভিন্ন সহায়তা দিতে ইচ্ছুক বলে জানান তিনি।

#

জাহিদ/অনসূয়া/ডালিয়া/আসমা/২০২২/১৬০০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর: ১৯৭৬

 

বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান শিক্ষা উপমন্ত্রীর

 

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে):

          বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করতে শিক্ষকদের আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। রাজধানীর সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু ‘সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ’ এর জাতীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান। 

          প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, তত্ত্বীয় জ্ঞানের চেয়ে ব্যবহারিক শিক্ষাকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রায়োগিক শিক্ষার মানসিকতা তৈরি করতে হবে। শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করতে হবে।

          মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতের স্বার্থে সৃজনশীলতার সঙ্গে পরিচয় করাতে হবে।  শিক্ষার্থীদের জীবনের সঙ্গে কাজ করার মানসিকতাই তৈরি হয়নি। আমরা তত্ত্বীয় জ্ঞানের ওপর এতো বেশি জোর দিচ্ছি যে, বাস্তবে কোনো কাজ করার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা নিরুৎসাহিত হয়ে যাচ্ছে। তারা মনে করছে, কৃষি কাজসহ কায়িক পরিশ্রমের কাজ হচ্ছে অশিক্ষিত লোকের কাজ।  যেহেতু সে শিক্ষিত হয়ে গেছে সেহেতু সে এসব কাজ  করবে না। কিন্তু শিক্ষার্থীরা লব্ধ জ্ঞানকে ব্যবহার করার মাধ্যমে নতুন নতুন সৃজনশীল কাজ উদ্ভাবন করতে পারে। তাই শিক্ষকদের প্রতি অনুরোধ থাকলো শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল হিসেবে গড়ে তোলা।

          শিক্ষার্থীদের উন্মুক্ত ও বিজ্ঞানমনস্ক করার আহ্বান জানিয়ে উপমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থী কুপমণ্ডুকতা, জড়তা, অতিমাত্রায় প্রতিক্রিয়াশীলতার মধ্যে ডুবে থাকলে এবং কুসংস্কার, ধর্মীয় অপব্যখ্যা, নারী-পুরুষের মধ্যে অসমতার প্রতি শিক্ষার্থীদের মনোযোগ চলে যায় শুধুমাত্র সৃজনশীল চর্চার অভাবে। আমরা বাস্তবের সঙ্গে শিক্ষার সম্পর্কটা অগ্রাহ্য করছি। সে কারণে শিক্ষকদের আমি অনুরোধ করবো জাতির পিতা যে দক্ষ জনগোষ্ঠী তৈরি করতে চেয়েছিলেন সে কারণে শিক্ষার্থীদের বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত করা একান্ত অপরিহার্য।

          উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ।

#

খায়ের/অনসূয়া/ডালিয়া/রবি/মানসুরা/২০২২/১৫৩০

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর : ১৯৭৫

ফিল্ম আর্কাইভের ৪৪তম বার্ষিকী উদযাপিত

ঢাকা, ৩ জ্যৈষ্ঠ (১৭ মে) :   

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মকবুল হোসেন বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংগ্রামী জীবন ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক তথ্যাবলীসহ দেশের ইতিহাস প

2022-05-17-16-27-5f7ada6acaae51741fded74079181c62.doc 2022-05-17-16-27-5f7ada6acaae51741fded74079181c62.doc

Share with :

Facebook Facebook