তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭

তথ্যবিবরণী ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭

তথ্যবিবরণী                                                                          নম্বর : ৩৫৯৪
 
সুস্থধারার সংস্কৃতিচর্চা সমাজকে সত্য, সুন্দর ও আলোর পথ দেখায়
             ---সমবায় প্রতিমন্ত্রী
ঢাকা, ১৫ পৌষ (২৯ ডিসেম্বর) : 
 
পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মোঃ মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ বলেছেন, সুস্থধারার সংস্কৃতিচর্চা সমাজকে সত্য, সুন্দর ও আলোর পথ দেখায়। নতুন প্রজন্মকে মননশীল সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে ব্যাপকভাবে সম্পৃক্ত না করায় একটা অংশ বিপথগামী হয়ে সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদের দিকে ধাবিত হচ্ছে। এদের অভিনয়, সংগীত, নৃত্য ও অভিনয়চর্চায় বেশি বেশি করে সুযোগ দিতে সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও দেশপ্রেমিকদের পরিকল্পিত কার্যক্রম নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। 
 
প্রতিমন্ত্রী আজ রাজধানীর বেইলি রোড অফিসার্স ক্লাবে আয়োজিত সাঁকো টেলিফিল্ম অ্যাওয়ার্ড-২০১৬ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন। সংগঠনের উপদেষ্টা মনিরুজ্জামান মনির এর সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলা টিভির ভাইস চেয়ারম্যান নিশাদ দস্তগীর, সুইডেনভিত্তিক এশিয়ান কিচেন ইন্টারন্যাশনাল এর চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল হাছান ও সংগঠনের পরিচালক নাজমুল খান।  
 
পরে প্রতিমন্ত্রী সাঁকো টেলিফিল্ম এর পক্ষ থেকে সংবর্ধিত গুণীজনদের হাতে পদক তুলে দেন। পদকপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ হলেন চলচ্চিত্র অভিনয়ে ইমন, নিপুণ, সংগীতে জাহাঙ্গীর সাঈদ, কোনাল, নৃত্য পরিচালনায় ইভান শাহারিয়ার সোহাগ, সাবিলা নুর, সংবাদ পাঠে ফয়জুল্লাহ সাঈদ, শাহানা চৌধুরী সুমী ও বিশেষ পুরস্কারে- দিঘি। সঙ্গীত জগতে বিশেষ অবদান রাখায় সৈয়দ আব্দুল হাদী আজীবন সম্মাননা পদক পান। 
 
 
#
আহসান/সেলিম/মোশারফ/আব্বাস/২০১৭/২০২২ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                        নম্বর :  ৩৫৯৩
 
লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনকে কার্যকর করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে
                           ---আসাদুজ্জামান নূর 
ঢাকা, ১৫ পৌষ (২৯ ডিসেম্বর) :  
 
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশনায় ও শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনকে একটি সত্যিকার অর্থে কার্যকর প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। লোকশিল্প জাদুঘরকে আরো সমৃদ্ধকরণসহ এটিকে সম্প্রসারণের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। লোকশিল্পীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রস্তুতের জন্য জরিপ কাজ শুরু হয়েছে। তাছাড়া এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় গবেষণাকর্মের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। অচিরেই প্রতিষ্ঠানটিতে ব্যাপক পরিবর্তন আনয়নপূর্বক জয়নুল আবেদিনের স্বপ্নের লোক ও কারুশিল্পবান্ধব একটি প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করা হবে।
মন্ত্রী আজ সকালে রাজধানীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বকুলতলায় শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ১০৩তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে চারুকলা অনুষদ আয়োজিত “জয়নুল উৎসব ২০১’’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু সবসময় কবি, লেখক ও শিল্পীদের পাশে ছিলেন এবং তাদের যথাযথ সম্মান দিয়েছিলেন। বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধুর পদাংক অনুসরণ করে একইভাবে কবি, লেখক ও শিল্পীদের যথাযথ সম্মান এবং সুযোগ-সুবিধা প্রদানের চেষ্টা করছে । শিল্পকলায় ৬৫ জন ভারতীয় শিল্পীর ছাপচিত্রের প্রদর্শনী চলছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এতে করে ভারত ও বাংলাদেশ দুই বন্ধুপ্রতিম দেশের মধ্যে শিল্প ও সাংস্কৃতিক বন্ধন দৃঢ হবে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এর সেক্রেটারি জেনারেল এম সহিদুল ইসলাম এবং প্রকৌশলী ময়নুল আবেদিন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন।
 
#
ফয়সল/সেলিম/মোশারফ/আব্বাস/২০১৭/১৯২৬ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী